LalmohanNews24.Com | logo

১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ | ২৫শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

সন্তানের সঙ্গে ভুলেও যে পাঁচ আচরণ করবেন না

সন্তানের সঙ্গে ভুলেও যে পাঁচ আচরণ করবেন না

শিশুরা তাদের বাবা-মায়ের সঙ্গে সবচেয়ে বেশি সময় কাটান। তাইতো বাবা-মায়ের সঙ্গে কিছু ঘটলে শিশুরা সবচেয়ে বেশি প্রভাবিত হয়। পরিবারে যা ঘটে তা শিশুদের ওপর একটি বড় প্রভাব ফেলে। হোক তা ভালো বা খারাপ, সঠিক বা ভুল।

যদি মা-বাবার মধ্যে কেউ একজন মানসিক নির্যাতন করে থাকেন এবং সন্তানটি বেশিরভাগ সময় তার সঙ্গে কাটায় তবে এর বিরূপ প্রভাব পড়বেই।

অভিভাবকত্ব শিশুর প্রকৃতিকে প্রভাবিত করে। শৈশবে মানসিক আঘাত পেলে পরবর্তীতে তাদের জীবন ভিন্ন প্রকৃতির হয়। তারা কিছু ক্রিয়াকলাপে নিজেদেরকে সীমাবদ্ধ রাখে যা আঘাতের স্মৃতিকে জীবন্ত রাখে।

সন্তানের শক্তি হোন

মা-বাবা হিসেবে আপনি কেবল আপনার সন্তানকে সর্বোত্তম জিনিস শেখাবেন না, তাকে বিশ্বের বিরুদ্ধে দাঁড়ানোর শক্তিও দিতে হবে। অভিভাবকত্ব মানে প্রতিটি প্রতিকূলতাকে সাহসী করার জন্য সন্তানের মধ্যে প্রাকৃতিক ঢাল তৈরি করে দেওয়া।

আপনি সন্তানের মানসিক নির্যাতনের কারণ নন তো!

এখন সময় এসেছে অভিভাবকদের এগিয়ে আসার এবং তাদের অভিভাবকত্বের মূল্যায়ন করার। আপনার প্যারেন্টিং এর উত্থান-পতন এবং ত্রুটি এবং সুবিধা থাকতে পারে; এই বিষয়ে অবশ্যই ভাবতে হবে। আপনার সন্তান বলেই আপনি তাকে যখন-তখন অপমান করার অধিকার রাখেন না। সন্তানের ভালোর জন্যই তার সঙ্গে এই পাঁচ কাজ করা থেকে বিরত থাকতে হবে। চলুন জেনে নেয়া যাক সন্তানের সঙ্গে ভুলেও কোন পাঁচটি আচরণ করবেন না-

সব সময় সমালোচনামূলক বা নেতিবাচক হবেন না

যদিও মা-বাবার কাজ সন্তানের প্রতি সুরক্ষামূলক হওয়া এবং তাদের অধিকার ও অন্যায় সম্পর্কে শেখানো, তবে অতিরিক্ত সমালোচনার নিজস্ব পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া রয়েছে। তাদের জীবনে অত্যধিক হস্তক্ষেপ এবং অতিরিক্ত প্রশ্রয় দিয়ে আপনি তাদের সৃজনশীল স্থানকে সংকুচিত করে দেন। যদিও জ্ঞানের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার গুরুত্ব উড়িয়ে দেওয়া যায় না, তবে শিশুরা তাদের ভুল থেকে অনেক ভালো শিখতে পারে।

সবসময় বিচারক হবেন না

আপনার বিবেচনার ভিত্তিতে সন্তানের আবেগকে বাতিল করবেন না। আপনি একটি শিশুর চেয়ে অনেক বেশি পার্থিব জিনিস দেখেছেন এবং অনুভব করেছেন। এমন সময় হতে পারে যখন সন্তানের আচরণ বোঝা আপনার পক্ষে কঠিন হবে এবং তা বোঝার পরিবর্তে পুরোপুরি বাদ দিতে বলবেন। এভাবে আপনার এবং সন্তানের মধ্যে সঠিক যোগাযোগের পথ বন্ধ হয়ে যাবে।

সন্তানকে দোষী করবেন না

এটি সবচেয়ে ধ্বংসাত্মক প্যারেন্টিং কৌশল। আপনার সন্তানকে দোষারোপ করা শুধুমাত্র এই কারণে যে তারা আপনার প্রত্যাশা পূরণ করেনি। এটি শিশুর মানসিক স্বাস্থ্যের ক্ষতি করে। প্রথম সুবর্ণ নিয়ম হলো সন্তানের কাছ থেকে আশা করা বন্ধ করা। শিশুর ওপর আপনার স্বপ্ন চাপিয়ে দেওয়া বন্ধ করুন। আপনি যা অর্জন করতে পারেননি তা সন্তানকে অর্জন করতে হবে এমনটা জরুরি নয়।

নিয়ম আরোপ করবেন না

নিয়ম ভাঙতে পারে। পিতামাতা হিসেবে আপনার প্রথমে যা জানা দরকার তা হলো সন্তানের জন্য কী ভালো। শিশুর ওপর প্রাচীন নিয়ম চাপিয়ে দেওয়া এবং তাকে একই কাজ করতে বাধ্য করা আবশ্যক নয়। আপনার জন্য যা কাজ করেছে, সেগুলো সবসময় সন্তানের জন্য কাজ নাও করতে পারে।

সন্তানকে ভয় দেখাবেন না

তুচ্ছ বিষয়ে আপনার সন্তানকে ভয় দেখাবেন না। এটি আপনার সন্তানের সিদ্ধান্ত নেয়ার ক্ষমতাকে ক্ষতিগ্রস্ত করতে পারে এবং আপনাদের দুজনের মধ্যে যোগাযোগ কমিয়ে দিতে পারে। শিশুকে ভয় দেখালে তা শিশুটিকে মা-বাবার প্রতি বিদ্বেষী করে তুলবে। শিশুটি পরিবারের বাইরে সাহায্য খুঁজবে এবং ভুল লোকেদের সঙ্গে মিশে বিপথগামী হতে পারে! -এইচপি

Facebook Comments Box


যোগাযোগ

বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়

লালমোহন, ভোলা

মোবাইলঃ 01712740138

মেইলঃ jasimjany@gmail.com

সম্পাদক মন্ডলি

  • সম্পাদক ও প্রকাশক:

    মোঃ জসিম জনি

    মোবাইল: 01712740138
  • নির্বাহী সম্পাদক: হাসান পিন্টু
  • মোবাইলঃ০১৭৯০৩৬৯৮০৫
  • বার্তা সম্পাদক: মো. মনজুর রহমান