LalmohanNews24.Com | logo

১৯শে শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ৪ঠা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

শাহবাগের সেই ‘গণজাগরণ মঞ্চ’ এখন কোথায়, কী করছে?

বিজ্ঞাপন

শাহবাগের সেই ‘গণজাগরণ মঞ্চ’ এখন কোথায়, কী করছে?

লালমোহননিউজ২৪ ডটকমঃ ১৯৭১ সালের মানবতাবিরোধী অপরাধীদের মৃত্যুদণ্ডের দাবিতে গড়ে ওঠা ‘গণজাগরণ মঞ্চের’ পাঁচ বছরপূর্তি হলো আজ।

মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে ২০১৩ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল আব্দুল কাদের মোল্লাকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেন। এর পর একদল তরুণ শাহবাগ মোড়ে জড়ো হয়ে তার মৃত্যুদণ্ডের দাবি জানাতে শুরু করেন, যা পরে ‘গণজাগরণ মঞ্চ’ ব্যানারে আন্দোলনে রূপ নেয়।

 

এর পর একের পর এক শীর্ষস্থানীয় মানবতাবিরোধী অপরাধীর ফাঁসিও কার্যকর করা হয়। কিন্তু এখন এই আন্দোলন তেমন করে আর চোখে পড়ে না। নেতৃত্ব নিয়ে কোন্দলের জের ধরে সরকারপন্থীদের একটি অংশ সরে দাঁড়ানোয় ভাঙনেরও মুখোমুখি হয়েছে এ আন্দোলনের সংগঠকদের মধ্যে।

এ প্রেক্ষাপটে এখন গণজাগরণ মঞ্চের কর্মকাণ্ড কী?

এমন প্রশ্নের জবাবে গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ডা. ইমরান এইচ সরকার বলছেন, অসাম্প্রদায়িক বৈষম্য মুক্ত সমাজ করতে মুক্তিযুদ্ধের যে আকাঙ্ক্ষা তার জন্য লড়াই অব্যাহত রয়েছে।

তিনি বলেন, ধর্ষণ, শিশু হত্যা কিংবা অর্থকড়ি লুটপাটের প্রতিবাদ সবই অব্যাহত ছিল। কয়েক মাস আগে আমাদের কর্মসূচিতে হামলা হয়। আরেকটি কর্মসূচি ঘিরে আমিসহ অনেকের নামে মামলা হয়েছে। এর পরই কিছুটা স্থবিরতা এসেছিল। কিন্তু গণজাগরণ মঞ্চের কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে।

কিন্তু এখন কি আর মানুষের সাড়া পাওয়া যাচ্ছে? এর জবাবে ইমরান বলেন, ‘এটি স্বতঃস্ফূর্ত মানুষের আন্দোলন। এখানে সবসময় যে সাড়া থাকে তা নয়। তবে সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে যে রোডমার্চ কিংবা কুমিল্লায় তনু ধর্ষণের প্রতিবাদের কর্মসূচিতে মানুষের সমর্থন আমরা পেয়েছি।

২০১৩ সালে যে দৃশ্যমান সাড়া এসেছিল এখন কি ততটা সাড়া আছে কিংবা মানুষের সেই মনোভাব কি এখন আর অবশিষ্ট আছে?

জবাবে ইমরান এইচ সরকার বলেন, তাদের লক্ষ্য ছিলও গণজাগরণ সারা দেশে ছড়িয়ে দেয়া। সেটি হয়েছে। কারণ এখন যে কোনো অন্যায় হলে মানুষ গণজাগরণ মঞ্চের আদলে প্রতিবাদ করছে। ২০১৩ সালের পর অধিকাংশ আন্দোলনে সাধারণ জনগণই নেতৃত্ব দিয়েছে।

তিনি বলেন, এর আগে গাড়িতে আগুন দেয়া ইটপাটকেল নিক্ষেপ এসবই ছিলও রাজনৈতিক কর্মসূচি। ইমরান আরও বলেন, কিন্তু আমরা দেখিয়েছি কীভাবে রাস্তায় নীরবতা পালন করেও কর্মসূচি পালন করা যায়। কীভাবে মোমবাতি জ্বালিয়েও প্রতিবাদ করা যায়।

কিন্তু এখন আর গণজাগরণ মঞ্চের কাজ চালিয়ে যাওয়ার প্রয়োজনীয়তা কোথায়?

জবাবে ইমরান এইচ সরকার বলেন, এখান থেকে সরে যাওয়া যে সহজ ব্যাপার তাও নয়, কিন্তু শুরুতে যে ধরনের কর্মসূচি হয়েছে সেখানে পরিবর্তন এসেছে। পরিবর্তন এসেছে আন্দোলনের গতিতেও। বিবিসি বাংলা।

 

হাসান পিন্টু

Facebook Comments Box


যোগাযোগ

বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়

লালমোহন, ভোলা

মোবাইলঃ 01712740138

মেইলঃ jasimjany@gmail.com

সম্পাদক মন্ডলি

error: সাইটের কোন তথ্য কপি করা নিষেধ!! মোঃ জসিম জনি