LalmohanNews24.Com | logo

২রা বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১৫ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

রাণীক্ষেত আর ঘাম্বুরো ভাইরাসের ছোঁয়ায় নষ্ট লালমোহনের লেয়ার মুরগীর খামারীদের স্বপ্ন!

রাণীক্ষেত আর ঘাম্বুরো ভাইরাসের ছোঁয়ায় নষ্ট লালমোহনের লেয়ার মুরগীর খামারীদের স্বপ্ন!

হাসান পিন্টু, লালমোহননিউজ টোয়ান্টিফোর ডটকম: রাণীক্ষেত আর ঘাম্বুরো ভাইরাসের কারণে আলোর মুখ দেখছে না ভোলার লালমোহন উপজেলার লেয়ার মুরগীর খামারীরা। এ উপজেলায় লেয়ার মুরগীর খামার রয়েছে ২৫ টি। সবচেয়ে বেশী মুরগীর খামার উপজেলার বদরপুর, কালমা ও পশ্চিম চর উমেদ ইউনিয়নে। এসব খামারে লক্ষ লক্ষ টাকা পুঁজি করলেও প্রতি বছরই লোকসান গুনতে হয় এ উপজেলার খামারীদের। খামারীরা পাচ্ছে না ডিমের ন্যায্য মূল্য ও সরকারী কোনো সহযোগিতা। মুরগীর বিভিন্ন রোগের বিষয়ে উপজেলা প্রাণীসম্পদ অফিসের সাথে আলোচনা করেও তারা পাচ্ছে না কোনো সুফল। একারণে বিপাকে পড়তে হচ্ছে উপজেলার লেয়ার মুরগী খামারীদের। তার উপরে রয়েছে উপজেলায় খাদ্য সিন্ডিকেট। এই খাদ্য সিন্ডিকেট বয়লারের মজুদ রেখে দাম বৃদ্ধি করছে বলে অভিযোগ করেছেন মুরগীর খামারীরা।

উপজেলার পশ্চিম চর উমেদ ইউনিয়নের গজারিয়া এলাকার খামারী মনির মাতাব্বর জানান, র্দীঘ দিন বেকার থাকার পরে মুরগীর খামার দেওয়ার পরিকল্পনা করি। ২০১৭ সালের প্রথম থেকে ২২ শত মুরগী দিয়ে দুইটি খামার করি। যাতে ব্যায় হয়েছে প্রায় ৩০ লক্ষ টাকা। সকল টাকাই ধাঁর দেনা করা। তবে যে পরিমাণ ব্যায় করেছি, খামার থেকে সে পরিমাণ আয় পাচ্ছি না। সরকারীভাবে আমাদের কোনো সহযোগিতা করা হয় না। মুরগীর জন্য বড় সমস্যা হচ্ছে রাণীক্ষেত আর ঘাম্বুরো রোগ। এ রোগের কারণেই আমাদের ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে।

পশ্চিম চর উমেদ ইউনিয়নের পাঙ্গাশীয়া এলাকার আরেক খামারী মো. জামাল ভূঁইয়া জানান, আমি ১১ বছর ধরে সোদি আরব ছিলাম। সেখান থেকে ফিরে লেয়ার মুরগীর খামার দেওয়ার চিন্তা করি। ২০১৬ সালের প্রথমে দিকে ১১ শত মুরগী নিয়ে খামারের কার্যক্রম শুরু করি। ১৩ দিনের মাথায় ৫ শত মুরগী মারা যায়। ২য় ধাপে আরো ১ হাজার মুরগী ক্রয় করি। কিন্তু ২১ দিনের মাথায় সাড়ে ৪ শত মুরগী মারা যায়। পরে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সাথে আলাপ করে জানতে পারি রাণীক্ষেত আর ঘাম্বুরো রোগের কারণে মুরগী মারা যাচ্ছে। এতে করে আমার ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। বর্তমানে আমার খামারে ১৫ শত মুরগী রয়েছে।

এবিষয়ে উপজেলা ভারপ্রাপ্ত প্রাণীসম্পদ কর্মকর্তা ডা. রাবেয়া শারমিন বলেন, রাণীক্ষেত এবং ঘাম্বুরো রোগ নির্মূল করতে উপজেলায় যে পরিমাণ ভ্যাকসিনের প্রয়োজন, আমরা সে পরিমাণ ভ্যাকসিন সরকারিভাবে পাচ্ছি না। অন্যদিকে এ অফিসে রয়েছে লোকবল সংকট। এসব কারণে খামারীদের সেবা দিতে আমাদের একটু সমস্যা হচ্ছে।

Facebook Comments Box


যোগাযোগ

বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়

লালমোহন, ভোলা

মোবাইলঃ 01712740138

মেইলঃ jasimjany@gmail.com

সম্পাদক মন্ডলি

error: সাইটের কোন তথ্য কপি করা নিষেধ!! মোঃ জসিম জনি