LalmohanNews24.Com | logo

১০ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ২৩শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

রাজীব-রোজিনারা কী এভাবেই চলে যাবে?

রাজীব-রোজিনারা কী এভাবেই চলে যাবে?

লালমোহননিউজ টোয়ান্টিফোর ডটকম: হিসাবটা খুবই সহজ। বেপরোয়া গাড়ি চালানো। নিয়ম না মানা। আর একর পর এক হাত-পা ছিঁড়ে ফেলা। পরপর চারটি ঘটনা। কারওয়ান বাজারে রাজীব হোসেন।

বনানীর চেয়ারম্যান বাড়িতে রোজিনা আক্তার। যাত্রবাড়ী ফ্লাইওভারে রাসেল। গোপালগঞ্জের খালিদ হাসান হৃদয়। বগুড়ার শেরপুরে ছোট্ট শিশু সুমি। রাজীব হাত হারিয়ে আর রোজিনা পা হারিয়ে জীবন থেকেই হারিয়ে গেলেন। অন্যদিকে হৃদয়, সুমি আর রাসেল এখন বাঁচার লড়াইয়ে। তাদের জন্য প্রার্থনা তারা যেন জীবনযুদ্ধে জয়ী হন। কিন্তু রাজীব-রোজিনাদের চলে যাওয়ায় কি সমাধান। অথবা এই রাষ্ট্র কী নির্বাক দর্শকের ভূমিকায় থাকবে। মাননীয় যোগাযোগ মন্ত্রীতো রাজীব হোসেনের চলে যাওয়ার পর বললেন রাজীবেরও দোষ থাকতে পারে। কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে দোষ-গুন বিচারের চেয়ে জীবন রক্ষার প্রশ্ন অনেক বেশি বড় নয় কি? রাস্তায় রাস্তায় গাড়ির রেশারেশিতে এভাবেই কি একের পর এক সম্ভাবনাময় প্রাণকে মৃত্যুর মুখোমুখি হতে হবে।

তারেক মাসুদ, মিশুক মুনীর এমন অনেক প্রাণ বলিদানেও কি আমরা শৃঙ্খলা আনতে পারবো না পরিবহন সেক্টরে। রাজীব হোসেনের মৃত্যু আমাদের কাঁদায়। যখন দেখি তার পরিবারের সেই ছিল একমাত্র বাঁচার অবলম্বন। রাজীবের চলে যাওয়া পুরো পরিবারকে এক তীব্র হতাশায় ঠেলে দেয়। বাবা-মায়ের চলে যাওয়ার পর দুই ভাইকে পড়াশুনার খরচের যোগান দিত রাজীব। অনেক স্বপ্ন ছিল ভাই দুটিকে মানুষের মতো মানুষ করবে। কিন্তু আমরা কি দেখলাম? অকালেই ঝরে যেত হলো রাজীবকে। রোজিনার স্বপ্নগুলোও চুরমার হয়ে গেছে। বাস নামক জন্তু পা-ই নেয়নি ব্যর্থ করে দিয়েছে রোজিনার বেঁচে থাকাকেও। আর ছোট্ট সুমি যখন তার মায়ের কাছে প্রশ্ন করে মা আমার হাত কোথায়?

তখন কোন জবাব কি আছে আমাদের কাছে। যার সামনে অমিত সম্ভাবনা। যে দৌড়াবে। হাসি আর আনন্দে স্কুলের মাঠ মাতাবে। এখন প্রতিটি দিনই যেন তারজন্য এক দুস্বপ্ন। রাসেল-হৃদয়ের বাঁচার লড়াইও আমাদের কতটুকু সুখবর দেবে এখনও কেউ নিশ্চিত নয়। যাত্রী কল্যাণ সমিতির তথ্যে জানা যায়, দেশের ৮৭ শতাংশ বাস-মিনিবাস নৈরাজ্যের সঙ্গে জড়িত। যোগাযোগের সবচেয়ে বড় মাধ্যম হচ্ছে সড়ক পরিবহন। আর তার মধ্যে ৮৭ শতাংশই যদি থাকে নৈরাজ্যের সঙ্গে যুক্ত তাহলে জীবন ঝুঁকিতে দেশের অগণিত মানুষ। আজ রাজীব-রোজিনা চলে গেছে। কাল আমাদের কাউকে এভাবেই যেতে হবে না তা কী আমরা বলতে পারি। আপনারা যারা সড়ক পরিবহনের শৃঙ্খলা আনার কাজে যুক্ত তাদের দায়িত্বশীলতাই রক্ষা করতে পারে অসংখ্য মানুষের জীবন। নিরাপদ করতে পারে সকলের পথচলা।

হাসান পিন্টু

Facebook Comments Box


যোগাযোগ

বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়

লালমোহন, ভোলা

মোবাইলঃ 01712740138

মেইলঃ jasimjany@gmail.com

সম্পাদক মন্ডলি

error: সাইটের কোন তথ্য কপি করা নিষেধ!! মোঃ জসিম জনি