LalmohanNews24.Com | logo

১৪ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ২৯শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

পৌর কর্মচারীদের আন্দোলনের কারণে সেবা বঞ্চিত লালমোহনের ৩৮ হাজার নাগরিক

মোঃ জসিম জনি মোঃ জসিম জনি

সম্পাদক ও প্রকাশক

প্রকাশিত : জুলাই ২১, ২০১৯, ১৯:১৬

পৌর কর্মচারীদের আন্দোলনের কারণে সেবা বঞ্চিত লালমোহনের ৩৮ হাজার নাগরিক

পৌরসভা কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের আন্দোলনের ফলে পৌরসভার সকল কার্যক্রম বন্ধ থাকায় স্থবির হয়ে পড়েছে লালমোহন পৌরসভার সকল কার্যক্রম। সব ধরনের নাগরিক সেবা বন্ধ রাখা হয়েছে। এতে চরম ভোগান্তিতে পড়েছে পৌরবাসীরা। ময়লার স্তুপ পরে আছে যত্র তত্র। দুর্গন্ধে সমস্যা হচ্ছে পথচারীদের। রাতে রাস্তার লাইট বন্ধ। বন্ধ রয়েছে পানি সরবরাহও। জন্মনিবন্ধন, নাগরিকসনদপত্র না পেয়ে হয়রানীর শিকার হচ্ছেন শহরবাসী। এতে ভোগান্তিতে পৌর এলাকার ৩৮ হাজার নাগরিক। একাধিক সূত্র জানায়, পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারীদের আন্দোলনের ফলে লালমোহন পৌরসভা কার্যালয়ে নাগরিক সেবা নিতে এসে শত শত মানুষ ফিরে যাচ্ছেন।

জানা যায়, রাষ্ট্রীয় কোষাগার থেকে বেতন-ভাতা এবং পেনশনের দাবিতে গত রোববার থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য কর্মবিরতি পালন করে আসছে সারাদেশের পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। এতে লালমোহন পৌরসভা সহ সারাদেশের পৌরসভার কার্যক্রম বন্ধ হয়ে গেছে। গত রোববার থেকে এসব পৌরসভার সব দপ্তরে তালা ঝুলিয়ে তাদের দাবী আদায়ের আন্দোলনের জন্য তারা ঢাকায় অবস্থান করছেন বলে জানিয়েছেন পৌরসভা কর্মচারী সংসদের নেতারা। এতে পৌর দপ্তরগুলো জনশূন্য হয়ে পরেছে। ময়লার স্তুপ পরে আছে যেখানে সেখানে। তাতে পৌর সেবার সকল সেবা থেকে বঞ্চিত রয়েছে পৌরবাসীরা।
এমনিতেই লালমোহন পৌরসভার নাগরিক সেবার মান তলানিতে। তার ওপর কর্মকর্তা-কর্মচারীদের রাষ্ট্রীয় কোষাগার থেকে বেতন-ভাতার দাবিতে অনির্দিষ্টকালের আন্দোলন শহরবাসীকে চরম বেকায়দায় ফেলেছে। বিশেষ করে জন্মনিবন্ধন, নাগরিক সনদপত্র, ট্রেড লাইসেন্স ইত্যাদি সেবা বন্ধ থাকায় নাগরিকদের সবচেয়ে বেশি বিড়ম্বনা হচ্ছে।
পরিচ্ছন্নতা কর্মী ও পানি সরবরাহের কাজে নিয়োজিত কর্মকর্তা-কর্মচারীরা আন্দোলনে থাকায় ভারি বর্ষণের ফলে ড্রেনের ময়লা পানিতে সয়লাব হয়ে গেছে শহরগুলোর অনেক এলাকা। বর্ষার পানি আর ড্রেনের ময়লা আবর্জনা ও মলমূত্রে একাকার শহরের বেশিরভাগ এলাকা। তার ওপর শহরের ড্রেনগুলো পৌরসভার মশা উৎপাদনের নিরাপদ খামারে পরিণত হয়েছে। ড্রেনগুলোতে মশা মারার ওষুধ ছিটানোর ঘটনাও বিরল।
এ ব্যাপারে লালমোহন পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ডের বাসিন্ধা রিয়াজ উদ্দিন জানান, পৌর কর্মচারীদের আন্দোলনের ফলে পৌরবাসীর অনেক সমস্যা হচ্ছে। এমনকি রাতে রাস্তার লাইটগুলো পর্যন্ত জ্বলে না। ময়লা আবর্জনা জমে থাকার কারণে দুর্গন্ধে রাস্তায় চলাচল করতে সমস্যা হচ্ছে। রাতে রাস্তার লাইট বন্ধ থাকার কারণে অন্ধকারের ফলে পথচারীরা চলাচল করতে অসুবিধা হচ্ছে। ৪নং ওয়ার্ডের আরেক বাসিন্দা আজাদুর রহমান জানান, পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারীদের আন্দোলনের ফলে পৌরবাসীরা জিম্মি হয়ে পরেছে। জন্মনিবন্ধন, পরিচপত্র, ট্রেড লাইসেন্স এমনকি পানি সরবরাহ বন্ধ করে রেখেছে। পানি সরবরাহ না করার কারণে খাবার পানি সহ নিত্যপ্রয়োজনীয় কাজ করতে চরম ভোগান্তিতে পড়েছে পৌরবাসী।
লালমোহন পৌরসভা কর্মচারী সংসদের সভাপতি মোঃ সফিউল্যাহ মিয়া, সাধারন সম্পাদক সিরাজউদ্দৌালা নওয়াব, সহ-সাধারণ সম্পাদক মোঃ নাজিম উদ্দিন জানান, আমরা অসহায়, আমাদের পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে। তাই আমরা রাষ্ট্রীয় কোষাগার থেকে বেতন-ভাতা এবং পেনশনের দাবিতে গত রোববার থেকে বর্তমানে ঢাকায় কর্মসূচি পালন করছি। তারা আরও জানান, যতদিন পর্যন্ত আমাদের দাবি মানা হবে না, ততদিন পর্যন্ত আমাদের আন্দোলন অব্যাহত থাকবে।

Facebook Comments


যোগাযোগ

বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়

লালমোহন, ভোলা

মোবাইলঃ 01712740138

মেইলঃ jasimjany@gmail.com

সম্পাদক মন্ডলি

error: সাইটের কোন তথ্য কপি করা নিষেধ!! মোঃ জসিম জনি