LalmohanNews24.Com | logo

১২ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ২৫শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

১২৩ রানেই প্যাকেট বাংলাদেশ

১২৩ রানেই প্যাকেট বাংলাদেশ

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে দ্বিতীয় ইনিংসে মাত্র ১২৩ রানেই গুটিয়ে গেছে বাংলাদেশ। প্রথম টেস্টে ড্র করা দাপুটে বাংলাদেশ দ্বিতীয় টেস্টে এসে মাত্র আড়াই দিনেই ২১৫ রানের বিশাল ব্যবধানে হারের স্বাদ পায়। আজ মিরপুরে তৃতীয় দিনে নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসে যেন আসা যাওয়ায় প্রতিযোগিতায় নেমেছিলো বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা। শেষ ২৩ রানেই ৫ উইকেট হারায় টাইগাররা। একে এক সাজঘরে ফিরেন মুশফিকুর রহীম, মাহমুদুৃল্লাহ রিয়াদ, সাব্বির রহমান, আবদুর রাজ্জাক, মেহেদি মিরাজ ও তাইজুল ইসলাম। এ দিন লঙ্কানদের হয়ে অভিষিক্ত বোলার আকিলা ধনঞ্জয়া একাই ৫ উইকেট নেন।

এছাড়া হেরাথ ৪ উইকেট নেন। এর আগে দলীয় ৭৮ রানে লিটন দাসের বিদায়ের পর দ্রুত রান তুলার জন্য বেপরোয়া হয়ে ব্যাট চালাতে থাকেন মুশফিক ও মাহমুদুল্লাহ। মুশফিক ২৫ রান করে হেরাথের বলে স্ট্যাম্পিং হন। এর পরের ওবারেই অভিষিক্ত ধনঞ্জয়ার শিকার হন ৬ রান করা মাহমুদুল্লাহ। পরে সাব্বির ১ রান করে আউট হন। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত বাংলাদেশের সংগ্রহ ১০২/৭। এর আগে লাঞ্চ বিরতির পরপরই ফিরে গেলেন মুমিনুল। ব্যাটিংয়ে আশা জাগালেও বেশিদূর এগোতে পারেননি তিনি। প্রথম ইনিংসের ব্যর্থতা কাটিয়ে ব্যক্তিগত স্কোরের সঙ্গে দলের রানও বাড়িয়ে নিচ্ছিলেন এই ব্যাটসম্যান। কিন্তু লাঞ্চের পর হেরাথের বলে উইকেটের পেছনে নিরোশান ডিকওয়েলার গ্লাভস বন্দী হন তিনি। আউট হওয়ার আগে মুমিনুল ৪৭ বলে ৩৩ রান করেন। এর আগে ঢাকা টেস্টের চতুর্থ ইনিংসে ৩৩৯ রানের বড় লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারের প্রথম বলেই ২ রান করে সাজঘরে ফিরেন তামিম ইকবাল। তামিমের বিদায়ের পর হাল ধরেন ইমরুল কায়েস ও মুমিনুল হক। দ্বিতীয় উইকেটে ৪৬ রানের জুটিও গড়েন তারা। এ জুটি ভাঙে বাঁহাতি ওপেনার ইমরুলের বিদায়ে। রঙ্গনা হেরাথের বলে উইকেটের পিছনে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন তিনি। এক চার ও ছক্কার মারে ২২ বলে ১৭ রান করেন তিনি। এর আগে ব্যক্তিগত ছয় রানে দিমুথ করুনারতেœর হাতে ক্যাচ দিয়েও বেঁচে যান তিনি। কিন্তু সেই সুযোগ কাজে লাগিয়ে ইনিংসকে বড় করতে পারেননি আগের ইনিংসে ১৯ রান করা এই ব্যাটসম্যান। এর আগে দ্বিথীয ইনিংসে ২২৬ রানে অলআউট হয় শ্রীলঙ্কা।

স্পোর্টস ডেস্ক: এ যেন আসা যাওয়ায় প্রতিযোগিতায় নেমেছে বাংলাদেশ দল। মাাত্র ২ রানের ব্যধানে ফিরে গেলেন বাংলাদেশের দুই অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহীম, মাহমুদুৃল্লাহ রিয়াদ ও সাব্বির রহমান। দলীয় ৭৮ রানে লিটন দাসের বিদায়ের পর দ্রুত রান তুলার জন্য বেপরোয়া হয়ে ব্যাট চালাতে থাকেন মুশফিক ও মাহমুদুল্লাহ। মুশফিক ২৫ রান করে হেরাথের বলে স্ট্যাম্পিং হন। এর পরের ওবারেই অভিষিক্ত ধনঞ্জয়ার শিকার হন ৬ রান করা মাহমুদুল্লাহ। পরে সাব্বির ১ রান করে আউট হন। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত বাংলাদেশের সংগ্রহ ১০২/৭। এর আগে লাঞ্চ বিরতির পরপরই ফিরে গেলেন মুমিনুল। ব্যাটিংয়ে আশা জাগালেও বেশিদূর এগোতে পারেননি তিনি। প্রথম ইনিংসের ব্যর্থতা কাটিয়ে ব্যক্তিগত স্কোরের সঙ্গে দলের রানও বাড়িয়ে নিচ্ছিলেন এই ব্যাটসম্যান। কিন্তু লাঞ্চের পর হেরাথের বলে উইকেটের পেছনে নিরোশান ডিকওয়েলার গ্লাভস বন্দী হন তিনি। আউট হওয়ার আগে মুমিনুল ৪৭ বলে ৩৩ রান করেন। এর আগে ঢাকা টেস্টের চতুর্থ ইনিংসে ৩৩৯ রানের বড় লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারের প্রথম বলেই ২ রান করে সাজঘরে ফিরেন তামিম ইকবাল। তামিমের বিদায়ের পর হাল ধরেন ইমরুল কায়েস ও মুমিনুল হক। দ্বিতীয় উইকেটে ৪৬ রানের জুটিও গড়েন তারা। এ জুটি ভাঙে বাঁহাতি ওপেনার ইমরুলের বিদায়ে। রঙ্গনা হেরাথের বলে উইকেটের পিছনে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন তিনি। এক চার ও ছক্কার মারে ২২ বলে ১৭ রান করেন তিনি। এর আগে ব্যক্তিগত ছয় রানে দিমুথ করুনারতেœর হাতে ক্যাচ দিয়েও বেঁচে যান তিনি। কিন্তু সেই সুযোগ কাজে লাগিয়ে ইনিংসকে বড় করতে পারেননি আগের ইনিংসে ১৯ রান করা এই ব্যাটসম্যান।

 

হাসান পিন্টু

Facebook Comments


যোগাযোগ

বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়

লালমোহন, ভোলা

মোবাইলঃ 01712740138

মেইলঃ jasimjany@gmail.com

সম্পাদক মন্ডলি

error: সাইটের কোন তথ্য কপি করা নিষেধ!! মোঃ জসিম জনি