LalmohanNews24.Com | logo

৪ঠা কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ১৯শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং

সাংবাদিকরা আসলে কি? শ্রমিক-কর্মচারী, নাকি কর্মকর্তা

সাংবাদিকরা আসলে কি? শ্রমিক-কর্মচারী, নাকি কর্মকর্তা

সারাদেশে পালিত হচ্ছে মহান মে দিবস। যার ফলে সরকারি-বেসরকারি সব কর্মকর্তা-কর্মচারীরা ছুটি কাটাচ্ছেন। কিন্তু সাংবাদিকরা কী করছেন? কারো জানা আছে? বা আগ্রহ আছে কী জানার? নেই, কারণ আমরা এমন একটা জাতি যারা নিজে বাঁচলে বাপের নাম বলে খুশিতে গদগদ হয়ে যাই। সত্য কথা হলো; ছুটি তো দূরের কথা, শ্রমিক বা কর্মচারী-কর্মকর্তারা যেসব সুবিধা ভোগ করেন তার ১০০ ভাগের এক ভাগও জোটে না গণমাধ্যমকর্মীদের কপালে।

সাংবাদিকরা সপ্তাহে ৬ দিন দায়িত্ব পালন করেন। এর মধ্যে প্রতিদিন গড়ে  ১২ থেকে ১৪ ঘণ্টা কাজ করেন তারা। একদিন সাপ্তাহিক ছুটি সেটাও পান না ঠিক মত। শ্রমিকদের চাইতেও কম বেতনে চাকরি করেন মিডিয়া হাউজগুলোয়। আবার পান থেকে চুন খসলে বড় কর্তারা বলেন, চাকরি ছেড়ে চলে যান।

তারা এসব বলেন কারণ প্রতিষ্ঠান তাদের পেছনে ব্যয় করে লাখ লাখ টাকা। শুধু মাত্র উঠতি ও মধ্যম লেভেলের সাংবাদিকদের শোষণ করার জন্য। তারপর, মাসের পর মাস বেতন হয় না। বাড়িওয়ালা সাংবাদিকদের বাড়ি ভাড়া দেয় না। দিলেও কথায় কথায় অপমান সইতে হয় অনিয়মতান্ত্রিক যাতায়াতের কারণে। মহান পেশা বলে কথা। বিবাহিতরা বাচ্চার দুধ কেনার টাকা বৌয়ের হাতে দিয়ে আসতে পারে না। আর বৃদ্ধ বয়সে কি হবে সেটা তো আর বললামই না।

গেল ১৫ বছর সরকারের দেয়া আশা নিয়ে নিষ্ঠার সঙ্গে দেশ গঠনে কাজ করে যাচ্ছেন সাংবাদিকরা। আর  সংগঠনগুলোর নেতারা এসবের ফায়দা লুটে বোকা বানাচ্ছেন সরকারকে, বোকা বনে যাচ্ছেন সাংবাদিকরাও।

যারা গেল ৩০ বছর সাংবাদিকতা করে যাচ্ছেন, আমাদের মত নতুনদের জন্য তারা কিছুই করে যেতে পারেনি বা করেনি, শুধু নিজেদের লাভের দিকে নজর তাদের।

এখন বর্তমান সমাজের উঠতি যুবক বা যুবতিরা সাংবাদিক নাম শুনলেই নাক সিটকায়। সবাই বলে ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার অথবা ক্রিকেটার হবে, কিন্তু জাতির চতুর্থ স্তম্ভ হবে এমন আশা করে না কেউ। সেটাই স্বাভাবিক, জীবন ধারণের জন্য যে অর্থের প্রয়োজন মিডিয়া হাউজগুলো সেটা দেবে না। অথবা কাজ করতে গিয়ে তুমি মরতে বসলেও হাউজগুলো তোমার চিকিৎসার ভার নেবে না। দোষ এই হাউজগুলোর না, দোষ আমাদের সিনিয়রদের, কারণ তারা মেরুদণ্ডহীন। নিজে ভালো থাকার জন্য নির্বিচারে অন্যের ওপর অত্যাচার করে যায়।

তাহলে সাংবাদিকতা পেশা আজ কোথায়, সাংবাদিকরা আসলে কি, শ্রমিক-কর্মচারী, নাকি কর্মকর্তা? নীতি নির্ধারকেদর কাছে প্রশ্ন।

সূত্র: ডেইলি বাংলাদেশ

Facebook Comments


যোগাযোগ

বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়

লালমোহন, ভোলা

মোবাইলঃ 01712740138

মেইলঃ jasimjany@gmail.com

সম্পাদক মন্ডলি

error: সাইটের কোন তথ্য কপি করা নিষেধ!! মোঃ জসিম জনি