LalmohanNews24.Com | logo

৩রা আষাঢ়, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ১৬ই জুন, ২০১৯ ইং

শবেবরাতের তারিখ নিয়ে বাহাস, কমিটি গঠন

শবেবরাতের তারিখ নিয়ে বাহাস, কমিটি গঠন

চাঁদ দেখা নিয়ে বাহাসের মধ্যে পবিত্র শবেবরাতের তারিখ নির্ধারণ নিয়ে ১০ সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে। আগামী ১৭ই এপ্রিলের মধ্যে সিদ্ধান্ত জানাবে এ কমিটি। শবেবরাতের তারিখ নিয়ে বিভ্রান্তি তৈরি হওয়ায় গতকাল দুপুরে ইসলামিক ফাউন্ডেশনে বিভ্রান্তি দূর করতে ধর্ম প্রতিমন্ত্রীর সভাপতিত্বে বৈঠক হয়। বৈঠক শেষে কমিটি গঠন ও তাদের সিদ্ধান্ত ঘোষণার আগ পর্যন্ত চাঁদ দেখা কমিটির বর্তমান সিদ্ধান্তই বহাল থাকার কথা জানানো হয়েছে। এর আগে ৬ই এপ্রিল সন্ধ্যার পর ইসলামিক ফাউন্ডেশনে জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সভায় আগামী ২১শে এপ্রিল রাতে শবেবরাত পালনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। সেদিন সভা শেষে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী বলেছিলেন, এদিন সারা দেশের কোথাও শাবান মাসের চাঁদ দেখা যায়নি। তাই নিয়ম অনুযায়ী ১৪ই শাবান রাত অর্থাৎ ২১ এপ্রিল রাতে শবে বরাত পালন করা হবে।

এরপরেই ‘মজলিসু রুইয়াতুল হিলাল’ নামের একটি সংগঠনের নেতারা বৃহস্পতিবার এক সংবাদ সম্মেলনে দাবি করেন, গত ৬ই এপ্রিল দেশের আকাশে চাঁদ দেখা গেছে এবং তা প্রশাসনকে জানানো হয়েছে। তবুও তারা সে অনুযায়ী সিদ্ধান্ত নেয়নি।

তাদের এ দাবির প্রেক্ষিতে শনিবার সকাল ১১ টায় ইসলামিক ফাউন্ডেশনে জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির বিশেষ সভা বসে। ধর্ম প্রতিমন্ত্রীর সভাপতিত্বে এই বৈঠকে মজলিসু রুইয়াতিল হিলালের প্রতিনিধিরাও উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া মুন্সিগঞ্জ জেলার কয়েকজন আলেম দাবি করেন তারা গত ৬ই এপ্রিল শাবান মাসের চাঁদ দেখেছেন।

একইসঙ্গে উভয় জেলার চাঁদ দেখেছেন এমন প্রত্যক্ষদর্শীরা পরবর্তীতে রাজধানীর জাতীয় প্রেস ক্লাব ও ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে সংবাদ সম্মেলন করে আগামী ২০শে এপ্রিল পবিত্র শবেবরাত পালনের দাবি জানান। গতকালের সভা শেষে চাঁদ দেখা কমিটির সভাপতি ও ধর্মপ্রতিমন্ত্রী শেখ আব্দুল্লাহ বলেন, চাঁদ দেখা কমিটিতে আলেম, আবহাওয়া অধিদপ্তরসহ সংশ্লিষ্টরা রয়েছেন। তাদের মতামতের ভিত্তিতেই তারিখ ঘোষণা করা হয়েছিল। কিন্তু আমাদের শবে বরাতের তারিখ ঘোষণার একদিন পর তারা আপত্তি জানিয়েছেন। তাদের উদ্দেশ্য আমাদের কাছে সৎ মনে হয়নি। তারপরও কোনো ধরনের বিভ্রান্তি যেন না থাকে সেজন্য তাদের নিয়ে বৈঠক করলাম। মন্ত্রী বলেন, কমিটি আপত্তিকারীদের সঙ্গে কথা বলে ১৭ই এপ্রিলের মধ্যে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত জানাবেন। কিন্তু ওই সিদ্ধান্ত জানানোর আগ পর্যন্ত জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির বর্তমান সিদ্ধান্ত বহাল থাকবে।

খাগড়াছড়ির গুইমারা উপজেলার হাতীমুড়া কেন্দ্রিয় জামে মসজিদের ইমাম হাফিজ মুহাম্মদ মুইনুল ইসলাম পারভেজ বলেন, চাঁদ দেখার বিষয়ে সাক্ষ্য দেয়ার জন্য আমরা দুই জেলা থেকে ২০ জন প্রত্যক্ষদর্শী বৈঠকে উপস্থিত হলেও আমাদের বক্তব্য শোনা হয়নি। ১০ সদস্যবিশিষ্ট যে কমিটি গঠন করা হয়েছে, সেখানেও আমাদের কাউকে রাখা হয়নি। বিষয়টি রহস্যজনক। আমরা ধারণা করছি, সরকার তার সিদ্ধান্ত বহাল রাখতেই এই ধরনের কমিটি গঠন করেছে। শবেবরাতের তারিখ নির্ধারণে মাওলানা আব্দুল মালেককে আহ্বায়ক করে কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন- মাওলানা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ, মাওলানা আব্দুল কুদ্দুস, মাওলানা রুহুল আমীন, মাওলানা মিজানুর রহমান, মাওলানা আব্দুর রাজ্জাক, মাওলানা দেলোয়ার, মুফতি ফয়জুল্লাহ, বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের সিনিয়র পেশ ইমাম মাওলানা মিজানুর রহমান ও মুফতি ইয়াহইয়া।

চাঁদ দেখা নিয়ে বাহাসের মধ্যে পবিত্র শবেবরাতের তারিখ নির্ধারণ নিয়ে ১০ সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে। আগামী ১৭ই এপ্রিলের মধ্যে সিদ্ধান্ত জানাবে এ কমিটি। শবেবরাতের তারিখ নিয়ে বিভ্রান্তি তৈরি হওয়ায় গতকাল দুপুরে ইসলামিক ফাউন্ডেশনে বিভ্রান্তি দূর করতে ধর্ম প্রতিমন্ত্রীর সভাপতিত্বে বৈঠক হয়। বৈঠক শেষে কমিটি গঠন ও তাদের সিদ্ধান্ত ঘোষণার আগ পর্যন্ত চাঁদ দেখা কমিটির বর্তমান সিদ্ধান্তই বহাল থাকার কথা জানানো হয়েছে। এর আগে ৬ই এপ্রিল সন্ধ্যার পর ইসলামিক ফাউন্ডেশনে জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সভায় আগামী ২১শে এপ্রিল রাতে শবেবরাত পালনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। সেদিন সভা শেষে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী বলেছিলেন, এদিন সারা দেশের কোথাও শাবান মাসের চাঁদ দেখা যায়নি। তাই নিয়ম অনুযায়ী ১৪ই শাবান রাত অর্থাৎ ২১ এপ্রিল রাতে শবে বরাত পালন করা হবে।

এরপরেই ‘মজলিসু রুইয়াতুল হিলাল’ নামের একটি সংগঠনের নেতারা বৃহস্পতিবার এক সংবাদ সম্মেলনে দাবি করেন, গত ৬ই এপ্রিল দেশের আকাশে চাঁদ দেখা গেছে এবং তা প্রশাসনকে জানানো হয়েছে। তবুও তারা সে অনুযায়ী সিদ্ধান্ত নেয়নি।

তাদের এ দাবির প্রেক্ষিতে শনিবার সকাল ১১ টায় ইসলামিক ফাউন্ডেশনে জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির বিশেষ সভা বসে। ধর্ম প্রতিমন্ত্রীর সভাপতিত্বে এই বৈঠকে মজলিসু রুইয়াতিল হিলালের প্রতিনিধিরাও উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া মুন্সিগঞ্জ জেলার কয়েকজন আলেম দাবি করেন তারা গত ৬ই এপ্রিল শাবান মাসের চাঁদ দেখেছেন।

একইসঙ্গে উভয় জেলার চাঁদ দেখেছেন এমন প্রত্যক্ষদর্শীরা পরবর্তীতে রাজধানীর জাতীয় প্রেস ক্লাব ও ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে সংবাদ সম্মেলন করে আগামী ২০শে এপ্রিল পবিত্র শবেবরাত পালনের দাবি জানান। গতকালের সভা শেষে চাঁদ দেখা কমিটির সভাপতি ও ধর্মপ্রতিমন্ত্রী শেখ আব্দুল্লাহ বলেন, চাঁদ দেখা কমিটিতে আলেম, আবহাওয়া অধিদপ্তরসহ সংশ্লিষ্টরা রয়েছেন। তাদের মতামতের ভিত্তিতেই তারিখ ঘোষণা করা হয়েছিল।

কিন্তু আমাদের শবে বরাতের তারিখ ঘোষণার একদিন পর তারা আপত্তি জানিয়েছেন। তাদের উদ্দেশ্য আমাদের কাছে সৎ মনে হয়নি। তারপরও কোনো ধরনের বিভ্রান্তি যেন না থাকে সেজন্য তাদের নিয়ে বৈঠক করলাম। মন্ত্রী বলেন, কমিটি আপত্তিকারীদের সঙ্গে কথা বলে ১৭ই এপ্রিলের মধ্যে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত জানাবেন। কিন্তু ওই সিদ্ধান্ত জানানোর আগ পর্যন্ত জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির বর্তমান সিদ্ধান্ত বহাল থাকবে।

খাগড়াছড়ির গুইমারা উপজেলার হাতীমুড়া কেন্দ্রিয় জামে মসজিদের ইমাম হাফিজ মুহাম্মদ মুইনুল ইসলাম পারভেজ বলেন, চাঁদ দেখার বিষয়ে সাক্ষ্য দেয়ার জন্য আমরা দুই জেলা থেকে ২০ জন প্রত্যক্ষদর্শী বৈঠকে উপস্থিত হলেও আমাদের বক্তব্য শোনা হয়নি। ১০ সদস্যবিশিষ্ট যে কমিটি গঠন করা হয়েছে, সেখানেও আমাদের কাউকে রাখা হয়নি।

বিষয়টি রহস্যজনক। আমরা ধারণা করছি, সরকার তার সিদ্ধান্ত বহাল রাখতেই এই ধরনের কমিটি গঠন করেছে। শবেবরাতের তারিখ নির্ধারণে মাওলানা আব্দুল মালেককে আহ্বায়ক করে কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন- মাওলানা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ, মাওলানা আব্দুল কুদ্দুস, মাওলানা রুহুল আমীন, মাওলানা মিজানুর রহমান, মাওলানা আব্দুর রাজ্জাক, মাওলানা দেলোয়ার, মুফতি ফয়জুল্লাহ, বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের সিনিয়র পেশ ইমাম মাওলানা মিজানুর রহমান ও মুফতি ইয়াহইয়া।

Facebook Comments


যোগাযোগ

বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়

লালমোহন, ভোলা

মোবাইলঃ 01712740138

মেইলঃ jasimjany@gmail.com

সম্পাদক মন্ডলি