LalmohanNews24.Com | logo

৫ই বৈশাখ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ১৮ই এপ্রিল, ২০১৯ ইং

লালমোহন হাসপাতালে চলে এমএলএসএস দিয়ে চিকিৎসা

মোঃ জসিম জনি মোঃ জসিম জনি

সম্পাদক ও প্রকাশক

প্রকাশিত : মার্চ ৩০, ২০১৯, ১৭:৫৮

লালমোহন হাসপাতালে চলে এমএলএসএস দিয়ে চিকিৎসা

ভোলার লালমোহন হাসপাতালে এমএলএসএস দিয়ে চলছে রোগীর চিকিৎসা। জরুরী বিভাগে মেডিকেল অফিসারের পরিবর্তে এমএলএসএস দিয়ে চিকিৎসা করায় সাধারণ রোগিরা হয়রানীর শিকার হচ্ছে। ডাক্তার সংকটের কারণে ও জরুরী বিভাগের ডাক্তার বাইরে চেম্বার খুলে বসায় চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারী ও সেকমোরাই অধিকাংশ সময় রোগিদের চিকিৎসা দিয়ে থাকেন।

আর ভুল চিকিৎসায় ভুগতে হচ্ছে রোগীদের। গত বুধবার বিকেলে শয়ন নামে ৩ বছরের এক শিশুর পায়ে সেলাই মেশিনের সুই ডুকে গেলে তাকে নিয়ে হাসপাতাল যায় মা ও দাদী। ওই সময় কর্তব্যরত মেডিকেল অফিসার ডাঃ মহসিন হাসপাতালে না থাকায় এমএলএসএস সিরাজ শিশুর চিকিৎসা শুরু করে দেয়।

শিশু শয়নকে কোন প্রকার এক্সরে না করে সুইয়ের অবস্থান নিশ্চিত না হয়ে পায়ে অস্ত্রপচার করে সিরাজ। কিন্তু সুই না পেয়ে পরে সেলাই করে দেয়। শিশুকে হাসপাতালে ভর্তি না করে বাড়ি পাঠিয়ে দেয় সিরাজ।

পরদিন শিশুর পা ফুলে গেলে চিৎকার শুরু করলে তার মা আবার হাসপাতালের বাইরে ঢাকা থেকে আগত মেডিকেল অফিসার ডাঃ আল-আমিন মল্লিকের কাছে নিয়ে যায়। ডাঃ আল-আমিন মল্লিক এক্সরে করে পায়ের মধ্যে সুইয়ের অবস্থান নিশ্চিত হন। কিন্তু ব্যথা ও ফুলা কমার আগে পুণরায় অস্ত্রপচার করে সুই বের করা সম্ভব নয় বলে জানান ডাক্তার।

এ ব্যাপারে এমএলএসএস সিরাজের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, গত আড়াই বছর পর্যন্ত তিনি এভাবে কাটা ছেড়া করেন, কোন সমস্য হয় না।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মিজানুর রহমানের কাছে ফোনে জানতে চাইলে তিনি জানান, ৪র্থ শ্রেণীর কর্মচারী অস্ত্রপচার করতে পারে না। তিনি বিষয়টি অবগত নন বলেও জানান।

Facebook Comments


যোগাযোগ

বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়

লালমোহন, ভোলা

মোবাইলঃ 01712740138

মেইলঃ jasimjany@gmail.com

সম্পাদক মন্ডলি