LalmohanNews24.Com | logo

২২শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ৭ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

লালমোহন থানা ছাড়লেন ওসি হুমায়ুন

লালমোহন থানা ছাড়লেন ওসি হুমায়ুন

মোঃ জসিম জনি ॥
চলে গেলেন লালমোহন থানার বিতর্কীত ওসি হুমায়ুন কবীর। বিদায় বেলায় কারো সংবর্ধনাও পেলেন না তিনি। এমনকি নিজের থানায়ও আনুষ্ঠানিক বিদায় সংবর্ধনা পাননি। কোনরকম থানার কয়েকজন মিলে ছোট্ট একটি বিদায় সভা করে আনুষ্ঠানিকতা রক্ষা করেন বলে জানা গেছে। শনিবার সকাল সাড়ে ৮টায় বরগুনা পুলিশ লাইনে বদলীকৃত ওসি হুমায়ুন লালমোহন থেকে চলে যান বলে জানিয়েছেন ওসি (তদন্ত) ও বর্তমান ভারপ্রাপ্ত ওসি মোঃ শাখাওয়াত হোসেন।
এদিকে ঘুষ বাণিজ্য, থানার ৩/৪ লক্ষ টাকার গাছ দিয়ে ফার্ণিচার তৈরি, ক্ষমতার অপব্যবহারসহ সকল স্তরের মানুষের সাথে দুর্ব্যবহারের অভিযোগে অভিযুক্ত লালমোহন থানার ওসি হুমায়ুন কবীরকে লালমোহন থানা থেকে বদলী করায় থানাসহ সাধারণ মানুষরাও উৎফুল্ল প্রকাশ করে। ওসি হুমায়ুনের নাম শুনলেই সব মহলেই যেন একটা ধীক্কার আর তিরস্কার চলে আসে। এর আগে তজুমদ্দিন থানায় থাকাকালে সেখান থেকেও কোজ হয়ে পুলিশ লাইনে বদলী করা হয় তাকে। পরে ২০১৬ সালে লালমোহন থানায় বদলী হয়ে আসেন তিনি। তার কর্মক্ষেত্র থানার এসআই, এএসআই এমনকি কনস্টেবলরা তার বিতর্কীত নির্দেশ মানতে না চাইলে তাকে বদলী করে দিতেন ওসি হুমায়ুন। গত বুধবার থেকে তার বদলীর আদেশ হবার খবরে সামাজিক যোগোযাগ মাধ্যমেও চলছে তীর্যক সমালোচনা। লালমোহন থানায় এমন ওসি এযাবৎকালে কেউ দেখেনি বলেও পথে ঘাটে চলতে থাকে সমালোচনা। ওসি বদলীর খবরে ফেসবুকে ঝড় ওঠে। মোঃ ফরিদ নামে এক ব্যবসায়ীকে ওসি ডেকে নিয়ে মিথ্যা অভিযোগে ৩৫ হাজার টাকা নিয়েছেন বলে তিনি তার ফেসবুকে লিখেছন। এনামুল হক রিপন নামে একজন ফেসবুকে লিখেছেন ‘তারেক জিয়ার মতো লালমোহন থানার ঘাটলায় হাওয়া ভবন তৈরি করেছে ওসি।’ মোঃ ইউসুফ লিখেছন, ‘লালমোহনের বহুল আলোচিত ওসি হুমায়ুনের বদলীতে লালমোহনের মানুষের স্বস্তি ফিরেছে।’ হাসান পিন্টু লিখেছেন ‘লালমোহন থানার ওসির বদলীতে লালমোহনের সর্বস্তরে যে আনন্দ বিরাজ করছে তাতে বুঝাই যাচ্ছে ওসি এ এলাকার মানুষের মনে তার জন্য কোনো ভালোবাসার জন্ম দিতে পারেনি। যা দিয়েছেন তার সবটুকুই ঘৃনা!!! এটা আসলেই একজন অফিসারের শেষ সময়ের জন্য খুবই লজ্জাজনক।’ সবচেয়ে আকর্ষণীয় মন্তব্য করেছেন আরশাদ মামুন। তিনি লিখেছেন, ‘লালমোহন থানার ওসি আর নেই : গভীর শোক’। এরপর লিখেছেন ‘লালমোহন থানার বিতর্কিত ওসি হুমায়ুন কবীর আর নেই। বদলী জণিত কারণে এ স্থান থেকে চলে যাওয়ায় শোকাহত ভুক্তভোগীরা।’ এছাড়া বিভিন্ন ব্যক্তির সাথে দুর্ব্যবহার ও ধরে এনে নির্যাতন করে অর্থ আদায়সহ নানান হয়রানী করার অভিযোগ করেন অনেকেই।

Facebook Comments


যোগাযোগ

বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়

লালমোহন, ভোলা

মোবাইলঃ 01712740138

মেইলঃ jasimjany@gmail.com

সম্পাদক মন্ডলি

error: সাইটের কোন তথ্য কপি করা নিষেধ!! মোঃ জসিম জনি