LalmohanNews24.Com | logo

২৯শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ১৩ই জুলাই, ২০২০ ইং

যে ভিডিও দেখে কাঁদছেন নেটিজেনরাও

যে ভিডিও দেখে কাঁদছেন নেটিজেনরাও

চীনের হুবেই প্রদেশের রাজধানী উহান থেকে ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে চীনাবাসীর জীবনযাপন রীতিমত পাল্টে গেছে। এখন মহামারীর সাথে খাপ খাওয়াতে সৃষ্টিশীল চিন্তাভাবনা শুরু করেছে চীনাবাসী।

প্রাণঘাতী এ ভাইরাসের ছোবলে চীনে এ পর্যন্ত ৫৬৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। বুধবার মারা গেছেন অন্তত ৭০ জন। দেশটিতে নতুন করে আরও ২ হাজার ৯৮৭ জনসহ মোট ২৭ হাজার ৩৭৮ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। বিশ্বের ২৮টি দেশ ও অঞ্চলে এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে।

সীমান্ত বন্ধ হয়ে চীনের একাংশ কার্যত অচল হয়ে পড়েছে। নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে বিশ্ব অর্থনীতিতে। আক্রান্তদের থেকে যাতে অন্যরা আক্রান্ত না হতে পারে, সেজন্য আক্রান্তদের কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। চিকিৎসা কাজে নিয়োজিত চিকিৎসক ও নার্সদেরও পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন করে রাখা হয়েছে।

সম্প্রতি সামাজিক মাধ্যমে প্রকাশ হওয়া কিছু ছবিতে দেখা যাচ্ছে, চিকিৎসক-নার্সদের চোখেমুখে ক্লান্তির ছাপ। টানা মাস্ক পরে থাকায় তাদের চেহারাটাই যেন পাল্টে গেছে। চামড়ায় ভাজ পড়ে গেছে। আয়নায় নিজের এ রকম চেহারা দেখে কাঁদছেন তাদের কেউ কেউ।

তবে সম্প্রতি ভাইরাল হওয়া একটি ভিডিও ফুটেজ সবার হৃদয়কে স্পর্শ করেছে। ৪৯ সেকেন্ডের ওই ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন নার্সকে দেখতে এসেছেন তার ৯ বছরের মেয়ে ও তার স্বামী। যেকেতু কাছে যাওয়ার সুযোগ নেই, তাই হাসপাতালের সামনে দাঁড়িয়ে মেয়ে ও স্বামীর সঙ্গে কথোপকথন হচ্ছে তার।

মেয়েকে বলতে শোনা যায়, ‘মা তুমি দ্রুত আমাদের মাঝে ফিরে এসো। তোমাকে ছেড়ে থাকতে আমার খুব কষ্ট হচ্ছে।’ মেয়ের কথা শুনে কর্তব্যনিষ্ঠ মা বলছেন, ‘মা, আমরা এখানে দানবের (করোনাভাইরাস) সঙ্গে লড়াই করছি। এ লড়াইয়ে জয়ী হয়েই তবে আমি তোমাদের মাঝে ফিরব।’

ভিডিওর এক পর্যায়ে মা ও মেয়েকে উড়ন্ত আলিঙ্গন করতে দেখা যায়। পরে মেয়ে মায়ের জন্য বক্সে আনা কিছু খাবার মাটিতে রেখে যায়।

ভিডিওটি দেখুন এখানে

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম ডেইলি মেইলের প্রতিবেদনে জানানো হয়, ঘটনাটি উহান শহরের একটি হাসপাতালের সামনে ধারণ করা। ওই নার্সের নাম লিউ হাইয়ান। তার ৯ বছরের মেয়ের নাম চেং শিওয়েন। উহান শহরে করোনাভাইরাস মহামারি আকার ধারণ করলে গত মাসে ৩৯ জন স্বাস্থ্য কর্মকর্তার সঙ্গে শহরের ফুগোউ কান্ট্রি পিপলস হাসপাতালে তাকে ডেকে নেয়া হয়।

হাসপাতালে যাওয়ার ১০ দিন পরে গত ৩১ জানুয়ারি তিনি তার পরিবারের সঙ্গে সাক্ষাতের সুযোগ পান। তবে নিরাপদ দূরত্ব বজায় রেখেই তাদের মধ্যে কথোপকথন হয়েছে।

Facebook Comments


যোগাযোগ

বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়

লালমোহন, ভোলা

মোবাইলঃ 01712740138

মেইলঃ jasimjany@gmail.com

সম্পাদক মন্ডলি

error: সাইটের কোন তথ্য কপি করা নিষেধ!! মোঃ জসিম জনি