LalmohanNews24.Com | logo

১০ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ২৩শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

যেমন আছেন মনপুরায় করোনা আক্রান্ত সেই যুবক

যেমন আছেন মনপুরায় করোনা আক্রান্ত সেই যুবক

ভোলার বিচ্ছিন্ন দ্বীপ উপজেলা মনপুরায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত(কোভিড-১৯) সেই যুবক কেমন আছেন! পাঠকদের এই প্রশ্নের উত্তর জানাতে এব্যাপারে উপজেলা প্রশাসন এবং স্বাস্থ্য কর্মকর্তার দপ্তরের সাথে যোগাযোগ করে জানা গেছে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত সেই যুবক আল্লাহর রহমতে ভালো আছেন।
আক্রান্ত ঐ যুবকের বয়স ২২ বছর। তার বাড়ি উপজেলার উত্তর সাকুচিয়া ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ডে।
গত ২৩ই এপ্রিল রাত সাড়ে ১১টায় ভোলা সিভিল সার্জনের বরাত দিয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. মাহমুদুর রশীদ বিষয়ের সত্যতা নিশ্চিত করেন।

খবর পেয়ে সাথে সাথে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিপুল চন্দ্র দাসের নের্তৃত্বে উপজেলা প্রশাসন এবং ডা. মাহমুদুদুর রশীদের নের্তৃত্বে কয়েকজন ডাক্তার ও স্বাস্থ্য কর্মীদের সহায়তায় আক্রান্ত যুবকের বাড়িতে গিয়ে তাৎক্ষনিকভাবে তাকে এনে উপজেলা সদরে অবস্থিত মনপুরা সরকারী ডিগ্রী কলেজে প্রাতিষ্ঠানিক আইসোলেশনে রাখা হয়। কলেজ ভবনের গেইট তালা মেরে রেখে তাকে সার্বক্ষনিক দেখভাল করার জন্য একজন চৌকিদার নিয়োগ করা হয়েছে। এছাড়া উপজেলা প্রশাসন ও মনপুরা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে দৈনিক দুইবার করে যোগাযোগ রাখা হচ্ছে।

আক্রান্ত যুবকও তার ভালো-মন্দ মোবাইল ফোনের মাধ্যমে শেয়ার করছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার এবং উপজেলা স্বস্থ্য কর্মকর্তার সাথে। পাশাপাশি তার পরিবারের সদস্যদের সাথেও যোগাযোগ করছেন। মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করার জন্য উপজেলা নির্বাহী অফিসার ব্যাক্তিগতভাবে নিয়মিতই তার ফোনে ফ্লেক্সিলোডের মাধ্যমে টাকা দিচ্ছেন বলে জানা গেছে।

এর আগে গত ২৪ই এপ্রিল উপঝেলা নির্বাহী অফিসার বিপুল চন্দ্র দাসের নের্তৃত্বে আক্রান্ত যুবক’কে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে ফুল ও ফল উপহার হিসেবে দিয়ে আসেন। এছাড়া বর্তমানে তাকে সরকারীভাবে হাসপাতাল থেকে সরবরাহ করা হচ্ছে উন্নতমানের খাবার। যার মধ্যে সকালে ডিম, কলা, রুটি ও দুধ, দুপুরে মাছ/মাংস, ডিম, ভাজি, ডাল, বিকেলে কলা, দুধ, ১টি ফল এবং রাতে মাছ/মাংস, ডিম, ভাজি, ডাল। এছাড়া তার পছন্দমত যা খেতে চায় তা-ই সরবরাহ করা হচ্ছে হাসপাতাল থেকে। পাশাপাশি সার্বক্ষনিক তার কাছে ফ্লাস্ক ভরে গরম পানি এবং জরুরী ওষুধ সরবরাহ করা হচ্ছে।

গত ৩দিন আগে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিপুল চন্দ্র দাস ঐ যুবকের সাথে সরাসরি দেখা করে তার সাথে কথা বলে এসেছেন। পরদিন মনপুরা উপজেলা স্বাস্থ্য ও প. প. কর্মকর্তা ডা. মাহমুদুর রশীদ তার দুইজন সিনিয়র স্টাফ নার্সকে নিয়ে দেখা করেন। এসময় তারা আক্রান্ত যুবকের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করেন। পরে তাকে মানষিকভাবে চাঙ্গা রাখার জন্য অনেক পরামর্শ দেন তারা।

এদিকে যুবকের করোনা পজেটিভ আসার খবর পাওয়ার পরদিন উপজেলা নির্বাহী অফিসার সরেজমিনে গিয়ে পরিবারের সকল সদস্যদের হোম আইসোলেশনে রেখে ৯ বাড়ি লকডাউন করে দেন। আক্রান্ত যুবকের পাশাপাশি যুবকের পরিবারের সদস্যদেরও স্বাস্থ্যের খোজ-খবর নিচ্ছেন স্বাস্থ্য কর্মকর্তা।

খোজ নিয়ে জানা গেছে, গত ২১ই এপ্রিল ঢাকার মিরপুরে একটি ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে কর্মরত এক যুবকসহ ৪জন মনপুরায় এসেছেন। এই খবর পাওয়ার পর ডা. মাহমুদুর রশীদ তার টিম নিয়ে যুবকের বাড়িতে গিয়ে তার, তার পরিবারের সদস্যসহ মোট ১৪ জনের নমূনা পরীক্ষার জন্য বরিশাল পাঠান। ঐ নমূনার ফলাফলে একজনের করোনা পজেটিভ আসে। বাকিদের ফলাফল নেগেটিভ। এপর্যন্ত ২১ জনের নমূনা সংগহ্র করে পাঠানো হয়েছে বলে জানান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানা গেছে, গত ২৩ই এপ্রিল থেকে ১৪ দিন আক্রান্ত যুবক আইসোলেশনে থাকার কথা রয়েছে। তবে তার স্বাস্থ্যের উপর নির্ভর করে এই আইসোলেশনের সময় আরো বাড়তে পারে। আইসোলেশনে থাকা অবস্থায় নূন্যতম দুইবার তার নমূনা পরীক্ষা করা হবে। এরই মধ্যে গতকাল ২৯ এপ্রিল নমূনা সংগ্রহ করে পাঠানো হয়েছে। এই পাঠানো নমূনার ফলাফল আসার পর পূনরায় আরেকবার নমূনা পাঠানো হবে। সর্বশেষ নমূনার ফলাফলের উপর নির্ভর করে যুবকের আইসোলেশন এবং লকডাউন রাখা কিংবা তুলে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিবেন উপজেলা প্রশাসন।

এব্যাপারে যোগাযোগ করলে মনপুরা উপজেলা স্বাস্থ্য ও প. প. কর্মকর্তা ডা. মাহমুদুর রশীদ এই প্রতিবেদক’কে বলেন, আক্রান্ত যুবকের সাথে সার্বক্ষনিক যোগাযোগের পাশাপাশি মাঝে মাঝে গিয়ে তার স্বাস্থ্য পরীক্ষা করছি। তিনি সুস্থ্য রয়েছেন। হাসপাতাল থেকে সরকারীভাবে উন্নতমানের খাবার সরবরাহ করা হচ্ছে। এরই মধ্যে তার নমূনা সংগ্র করে বরিশাল পাঠিয়েছি। এছাড়া আরো একবার তার নমূনা আমরা পাঠাবো। আক্রান্ত যুবকের পাশাপাশি তার পরিবারের সদস্যদের স্বাস্থ্যের খোজ-খবর নিচ্ছেন বলেও জানান তিনি।

মনপুরা উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিপুল চন্দ্র দাস বলেন, সার্বিকভাবে ঐ যুবক ভালো আছেন। তিনি শারিরীক এবং মানষিকভাবে ভালো থাকার জন্য যা যা করনীয় আমরা তা করে যাচ্ছি। আমি তার সাথে সরাসরি দেখা করেছি। এছাড়া প্রতিদিন দুইবার করে ফোনে কথা বলি। তার ভালো-মন্দ আমাদের সাথে শেয়ার করা এবং তার পরিবারের লোকজনের সাথে যোগাযোগ করার জন্য তার ফোনে ফ্লেক্সিলোডের মাধ্যমে টাকা দেওয়া হচ্ছে বলেও তিনি জানান।

লালমোহননিউজ/ এইচ.পি

Facebook Comments Box


যোগাযোগ

বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়

লালমোহন, ভোলা

মোবাইলঃ 01712740138

মেইলঃ jasimjany@gmail.com

সম্পাদক মন্ডলি

error: সাইটের কোন তথ্য কপি করা নিষেধ!! মোঃ জসিম জনি