LalmohanNews24.Com | logo

৩রা ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ১৮ই আগস্ট, ২০১৯ ইং

মেয়ে আগুনে পুড়ছে, দাঁড়িয়ে দেখছিলাম!

মেয়ে আগুনে পুড়ছে, দাঁড়িয়ে দেখছিলাম!

মেয়ে আমার আগুনের মধ্যে পুড়ছে, আর আমি নিচে দাঁড়িয়ে দেখছিলাম; কিছুই করতে পারিনি! গতকাল (বৃহস্পতিবার) দুপুরে প্রথমে টিভিতে দেখি বনানীর এফআর টাওয়ারে আগুন লেগেছে। আমার কলিজার টুকরা যে এখানেই ১২ তলায় দারাজ গ্রুপে চাকরি করে। সঙ্গে সঙ্গে মেয়েকে ফোন দেই। ফোন আর বাজে না! আরেক মেয়েকে সঙ্গে নিয়ে ছুটে আসি। রাস্তায় লাখ লাখ মানুষের ভিড় ভেতরে ঢুকতে পারি না!

এভাবেই কাঁদতে কাঁদতে বনানীর এফ আর টাওয়ারের আগুনে নিখোঁজ মেয়ের বর্ণনা দিচ্ছিলেন তার মা। ওই সময় ভবনটির জ্বলন্ত ১২ তলায় ছিলেন অর্পা।

তিনি আরো বলেন, অনেক কষ্টে মানুষের ধাক্কা-গুঁতো খেয়ে ভিড় ঠেলে ভবনের সামনে এসে দেখি চিতার মতো জ্বলন্ত আগুন। ভেতর থেকে মানুষের হাত, মাথা দেখা যাচ্ছে। অনেক মানুষ ছুটে পড়ছে নিচে। আমি পাগলের মতো ছুটতে থাকি আমার মেয়ে কোথায়? আমার চিৎকার কেউ শোনে না! আমি কাকে বলব, কার কাছে যাবো, জানি না। পুলিশ, র‌্যাব, ফায়ার সার্ভিসের লোকেরা তাদের কাজে ব্যস্ত, কেউ বলতে পারছে না কোথায় অর্পা?

কিছু সাংবাদিক এসে জিজ্ঞেস করে আপনার কে আছে এখানে? আমি জানাই, আমার মেয়ের নাম অর্পা। এরপর বিকেল থেকে যখন ফায়ার সার্ভিস ট্রলির সাহায্যে ভবন থেকে মানুষদের উদ্ধার করতে থাকে।  তখন আমরা তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করলেও তারা কিছু জানাতে পারেননি।

অর্পার মা আরো বলেন, সময় কেটে যাচ্ছে। অর্পা নামের কেউ বেঁচে আছে, না উদ্ধার হয়েছে? কিছুই জানি না। এরপরের ট্রলিটি যখন বিকেল ৪টার দিকে উপরে ওঠে তখন জানতে পারি, অর্পা নামের একজন আছে। তারা জানায়, পরের বার উঠে নামানো হবে। এর মধ্যে আধা ঘণ্টা কেটে গেলো। দেখি, আগুন আরো বেড়ে যাচ্ছে। আমার কলিজা ফেটে চিৎকার করে উঠি, এই শেষ। একটা মেশিন ১২ তলায় উঠতে এতো সময় লাগে? অর্পা আর নেই। চিৎকার করতে থাকি, আর দোয়া করতে থাকি।

এভাবেই উৎকণ্ঠার মধ্যে কেটে গেলো কয়েক ঘণ্টা। বিকেল সাড়ে চারটার পর অর্পাকে অক্ষত নামালো উদ্ধার কর্মীরা। পরে উপলব্ধি করলাম, উদ্ধার কর্মীদের নিরন্তর প্রচেষ্টায় আমার মেয়েকে মৃত্যুর দুয়ার থেকে ফিরে পেলাম।

Facebook Comments


যোগাযোগ

বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়

লালমোহন, ভোলা

মোবাইলঃ 01712740138

মেইলঃ jasimjany@gmail.com

সম্পাদক মন্ডলি

error: সাইটের কোন তথ্য কপি করা নিষেধ!! মোঃ জসিম জনি