LalmohanNews24.Com | logo

৩রা ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ১৮ই আগস্ট, ২০১৯ ইং

মাথা গোঁজার জন্য একটি ঘরের আকুতি!

মাথা গোঁজার জন্য একটি ঘরের আকুতি!

দুই পুত্র সন্তানকে রেখে লিভার ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে স্বামী পরপারে পাড়ি জমিয়েছেন প্রায় ৫ বছর আগে। পরিবারের একমাত্র উর্পাজনক্ষম ব্যক্তিকে হারিয়ে এরপর থেকে নিরুপায়। তখন একটি ভাঙা ঘরে রাত্রি যাপন করলেও সম্প্রতি এক বন্যায় সেই ঘরটিও ভেঙে যায়।

এরপর থেকে ছোট দুই বাচ্চাকে নিয়ে অন্যের ঘরে কোনো রকম রাত্রি যাপন করলেও দিনের বেলা এ বাড়ি-ও বাড়ি ঝি এর কাজ করে পাড় হয়। প্রতিবেদককে নিজের অসহায়ত্বের কথাগুলো বলছিলেন ভোলার লালমোহন উপজেলার পশ্চিম চর উমেদ ইউনিয়নের নমগ্রাম এলাকার বিশ্বাসের বাড়ির শ্রবণ প্রতিবন্ধি সাবিত্রী রাণী।

তিনি আরও বলেন, গেলো রোজায় মানুষের বাড়িতে ৫০ টাকা মজুরিতে মুড়ি ভাজার কাজ করেছি সন্তানদের মুখে দু’মুঠো ভাত তুলে দিতে। এছাড়া বছরের অন্যদিনগুলোতে মানুষের কাছে হাত পেতে সংসার পরিচালনা করি। পেট চালাই অন্যের দেয়া সহযোগিতা নিয়ে। যা দিয়ে দু’বেলা খেতেই বেগ পেতে হয়।

তার ওপর আবার কি করে ভাঙা ঘর মেরামতের চিন্তা করি। এতোদিন অন্য মানুষের ঘরে কোনো মতে রাত কাটালেও এখন তারও সেখান থাকতে দিচ্ছে না। ভেবে উঠতে পাড়ছি না ছোট ছোট এই দুই সন্তানকে নিয়ে এখন কোথায় যাবো, কি করবো?

একটি ঘরের জন্য স্থানীয় মেম্বারের সাথে আলাপ করেও কোনো সুফল পাইনি। তাই সরকারের কাছে দাবী করছি দুই সন্তানকে নিয়ে মাথা গোঁজার জন্য যেনো সরকারীভাবে একটি ঘর দেয়া হয় আমার জন্য। এছাড়াও অনুরোধ করছি ছোট ছোট দুই সন্তানদের নিয়ে সংসার পরিচালনার জন্য সরকারী বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা দেয়া হয় আমাকে।

এব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হাবিবুল হাসান রুমি বলেন, সরকারীভাবে আপাতত কোনো ঘরের বরাদ্দ নেই। সামনে যদি কোনো সুযোগ আসে তাহলে অবশ্যই তার জন্য একটি ঘরের ব্যবস্থা করা হবে।

Facebook Comments


যোগাযোগ

বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়

লালমোহন, ভোলা

মোবাইলঃ 01712740138

মেইলঃ jasimjany@gmail.com

সম্পাদক মন্ডলি

error: সাইটের কোন তথ্য কপি করা নিষেধ!! মোঃ জসিম জনি