LalmohanNews24.Com | logo

২২শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ৮ই ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

বিলীন হচ্ছে ঢালচর!

বিলীন হচ্ছে ঢালচর!

বঙ্গোপসাগর, মেঘনা, বুড়া গৌরাঙ্গা নদীর ভয়াল ছোবলে চরফ্যাশনের দু’শত বছরের পুরনো বিচ্ছিন্ন দ্বীপ ঢালচরে দিনের পর দিন বিলীন হয়ে যাচ্ছে বসত-ভিটা, ফসলি জমি, স্কুল, মাদ্রাসা, মসজিদও মৎস্য আড়ৎসহ গুরূপ্তপূর্ন স্থাপনা। তীব্র ভাঙ্গনের কবলে ১ থেকে ৬ নং ওয়ার্ড নদী গর্ভে । আর এসব বসত-ভিটা হারানো মানুষগুলো খোলা আকাশের নিচে মনবেতর দিন কাটাচ্ছে। তারা আশ্রয়ের কোন ঠিকানা পাচ্ছে না। তাদের দিন কাটছে অনেক কষ্টে। ভাঙ্গণের তীব্রতায় আতংকে দিনাতিপাত করছে ঢালচরের জেলে পল্লীর বাসিন্দারা।

চলতি বছর নদী ভাঙ্গন রোধে পানি উন্নয়ন বোর্ড পদক্ষেপ নিয়ে সচিব, অর্থ সচিব, প্রকৌশলীরা পরিদর্শণ করে অর্থ বরাদ্ধ চেয়েছে বলে জানিয়েছেন পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকোশলৗ কাইসার আলম।

এলাকাবাসীর সঙ্গে আলাপ করে জানা গেছে, দ্বীপজেলার এক তৃতীয়াংশ মৎস্য আয়ের উৎস হচ্ছে ঢালচর। নদী ও সাগরে মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করে চলছেন এখানকার ৩০ হাজার মানুষ। মাছের ওপর নির্ভরশীল হয়ে বেকারত্ব দুর করার চেষ্টা চললেও এসব মানুষের স্বপ্ন আশা ভেঙে চুরমার করে দিচ্ছে নদী ও সাগরের ভয়াবহ ভাঙন। এলাকাবাসীর দেওয়া তথ্য মতে, গত ৬ মাসে ১টি বৃহৎ বাজার, ৪টি গুচ্ছগ্রাম,২শতাধিক ঘর-বাড়ি, ১টি মাদ্রসা,২টি মসজিদ,৫টি পুকুর,১টি ফরেস্ট অফিস, ২৫০টি ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান ও শতাধিক একর ফসল জমি বিলীন হয়ে গেছে। চলতি শীত মৌসুমেও ভয়াবহ ভাঙন অব্যাহত রয়েছে।

এখন ভাঙনে পড়েছে ২টি গুচ্ছ গ্রাম, ২টি মৎস্য বাজার , একটি পুলিশ ফাঁড়ি, ৩টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, একটি কোয়াটার, রেস্টহাউজ , একটি ফরেস্ট অফিস এবং হ্যালিপেডসহ অসংখ্য ঘর-বাড়ি। ভাঙন রোধ কল্পে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া না হলে ঢালচরের বাকি ৩টি (৬-৯) ওয়ার্ড ও বিলীন হওয়ার আশঙ্কা করছেন এলাকাবাসী। ক্রমেই ছোট হয়ে আসছে শত বছরের প্রাচীন এ দ্বীপটি। পুরো জনপদ ভেঙে গেলে তারা কোথায় আশ্রয় নেবে সে চিন্তায় দিশেহারা তারা।

গুচ্ছ গ্রামের বাসিন্দা মনোয়ারা, সকিনা ও বিবি রাবেয়া বলেন,“বর্ষা মৌসুমেও নদীতে ঘর-বাড়ি বিলীন হয়ে যায়। বহু কষ্ট করে নতুন ঘর তুলেছি। কিন্তু এখন আবার ভাঙন চলছে। এখন আর কোথাও আশ্রয় নেওয়ার জায়গা নেই। ঢালচরের বাসিন্দা সেকান্দার, নিরব, শাহে আলম বলেন, “যেভাবে ভাঙন চলছে। এ ভাঙন অব্যাহত থাকলে সাগরে বিলীন হয়ে যাবে পুরো ঢালচর।

ঢালচরের মৎস্য ব্যবসায়ী মাহাবুবুর রহমান বলেন,“ঢালচরকে ভাঙনের হাত থেকে রক্ষার দাবিতে কিছুদিন আগে আমরা মানব বন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিলসহ বিভিন্ন কর্মসূচী পালন করেছি’ কিন্তু আজো কার্যকরি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি।

তবে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুহুল আমিন বলেন, “ঢালচরের নদী ভাঙন রোধ কল্পে নতুন প্রকল্প নেয়া হয়েছে। ভাঙনের মুখে পড়া স্থাপনাগুলো আমরা অন্যত্র সরিয়ে নিচ্ছি। এদিকে, সহায় সম্বল হারিয়ে দিশেহারা ভাঙন কবলিত এলাকার মানুষ। প্রাকৃতিক দুর্যোগের সঙ্গে লড়াই করে বেঁচে থাকা মানুষ গুলো ভাঙন রোধে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানিয়েছেন।

লালমোহননিউজ/ হাসান পিন্টু

Facebook Comments Box


যোগাযোগ

বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়

লালমোহন, ভোলা

মোবাইলঃ 01712740138

মেইলঃ jasimjany@gmail.com

সম্পাদক মন্ডলি

error: সাইটের কোন তথ্য কপি করা নিষেধ!! মোঃ জসিম জনি