LalmohanNews24.Com | logo

৩১শে আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১৬ই অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

পোস্টিং থাকলেও লালমোহনের ইউনিয়নের স্বাস্থ্য কেন্দ্রগুলোতে যাচ্ছেন না ডাক্তার ॥ ঝুলছে তালা

মোঃ জসিম জনি মোঃ জসিম জনি

সম্পাদক ও প্রকাশক

প্রকাশিত : জুলাই ১০, ২০২১, ২১:৩৬

পোস্টিং থাকলেও লালমোহনের ইউনিয়নের স্বাস্থ্য কেন্দ্রগুলোতে যাচ্ছেন না ডাক্তার ॥ ঝুলছে তালা

ভোলার লালমোহনে ইউনিয়ন পর্যায়ে ৮টি সাব সেন্টার বা ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রের বিপরীতে ৮জন এমবিবিএস ডাক্তার নিয়োগ দেওয়া হলেও তারা কখনোই স্ব স্ব কর্মস্থলে যাচ্ছেন না। এদের সবাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অবস্থান করছেন। নিয়মিত বিভিন্ন চেম্বারে প্রাইভেট রোগীও দেখছেন। ওইসব স্বাস্থ্য কেন্দ্রের রোগীরা জানেনই না তাদের জন্য একজন এমবিবিএস ডাক্তার নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। গ্রাম পর্যায়ে সাধারণ রোগীরা ডাক্তার না পেয়ে দুর্ভোগের মধ্যে আছে। তাদের অনেক পথ অতিক্রম করে যাতায়াতের অনেক অর্থ খরচ করে চিকিৎসা সেবা পেতে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আসতে হচ্ছে। ডাক্তার না যাওয়ায় কোন কোন স্বাস্থ্য কেন্দ্রে তালা ঝুলতেও দেখা গেছে।

শনিবার বেলা সাড়ে ১১টায় চরভূতা ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে গিয়ে দেখা গেছে প্রধান দরজায় তালা ঝুলছে। দায়ীত্বরত কাউকেই খুঁজে পাওয়া যায়নি। অথচ একেন্দ্রের নিয়োগকৃত ডাঃ মো. হাবিবুর রহমান। উম্মে কুলসুম সিমা নামে একজন এফডাব্লিউবি নিয়োগ আছেন এখানে। তাকেও খুঁজে পাওয়া যায়নি। স্বাস্থ্য কেন্দ্রের পাশের লোকজনকে জিজ্ঞেস করলে তারা জানেনই না এখানে একজন এমবিবিএস ডাক্তার নিয়োগ দেওয়া আছে। আলাউদ্দিন নামে পাশেরই একজন জানান, এখানে ডাক্তার দেখেননি কোনদিন তারা। শুধু একজন এফডাব্লিউবি মহিলাকে এসে রোগী দেখতে দেখেন। তাও লকডাউন হওয়ায় তিনিও আসছেন না। যার ফলে একেন্দ্রে তালা ঝুলছে। মঙ্গলসিকদার উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রে দায়ীত্বরত সেকমো কোহিনুর বেগমকে শনিবার বেলা ১২টায় গিয়েও খুঁজে পাওয়া যায়নি। তার কক্ষে দেখা গেছে তালা। তিনি পার্শবর্তী উপজেলা চরফ্যাশন গেছেন। এ সাব সেন্টারে বিগত ৫ বছরেও কোনো এমবিবিএস ডাক্তার চোখে দেখেননি বলে জানান ওই কেন্দ্রেরই এফডাব্লিউবি অর্চনা দত্ত। অথচ ২০১৯ সালেই এখানে একজন এমবিবিএস ডাক্তার নিয়োগ দেওয়া হয়েছিল।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে ৩৯তম বিসিএস স্বাস্থ্য ক্যাডারের ১৪ জন ডাক্তার নিয়োগ দেওয়া হয় লালমোহনে। এর মধ্যে ৮জন হলেন ইউনিয়ন পর্যায়ের ৮টি সাব সেন্টার বা ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে। তাদের মধ্যে ডাঃ প্রজ্ঞা সাহা মঙ্গলসিকদার উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রে, ডাঃ মো. ফাহাদ নাছিরকে পশ্চিম চরউমেদ স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে, ডাঃ মো. সরওয়ার্দী বদরপুর ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র, ডাঃ আফরোজা সুলতানা লর্ডহার্ডিঞ্জ উপ স্বাস্থ্য কেন্দ্রে, ডাঃ মো. হাবিবুর রহমান চরভূতা ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে, ডাঃ শহীদুল ইসলাম ডাওরী চরপংখির হাট উপ স্বাস্থ্য কেন্দ্রে, ডাঃ এসএস মাজহারুল ইসলাম ফরাজগঞ্জ ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে এবং ডাঃ আব্দুল্লাহ আল মর্শিদ লালমোহন ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে। এদের মধ্যে ফরাজগঞ্জ স্বাস্থ্য কেন্দ্র ছাড়া বাকী কোনটিতেই ডাক্তাররা যাননি। যদিও দুই একজন সপ্তাহে একদিন যাচ্ছেন বলে দাবী করা হলেও এসব কেন্দ্রের মানুষজন কখনোই জানতে পারেননি তাদের জন্য নির্ধারিত একজন ডাক্তার পোস্টিং দিয়েছেন সরকার। সেসব কেন্দ্রে দায়ীত্ব পালন করছেন সেকমো বা এফডাব্লিউবি। যাদের দিয়ে বড় কোন চিকিৎসা সেবা পায়না রোগীরা। তারা সামান্য সর্দি, জর, এলার্জি, পাতলা পায়খানা ও কৃমি ছাড়া অন্য কোন রোগের চিকিৎসা সেবা দিতে পারেন না। ইউনিয়ন সাব সেন্টারে চিকিৎসা না পেয়ে রোগীরা দীর্ঘপথ পাড়ি দিয়ে উপজেলা সদরের স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আসতে হয়। এতে তাদের সময় ও যাতায়াতে অনেক অর্থ ব্যয় হয় বলে জানান রোগীরা। মঙ্গলসিকদার উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রের ডাঃ প্রজ্ঞা সাহা ৭-৮ মাস আগে বদলী হয়ে চলে গেছেন। লালমোহন ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রের ডাঃ আব্দুল্লাহ আল মর্শিদ ২ মাস আগে বদলী হয়ে গেছেন। এরাও যতদিন লালমোহনে ছিলেন তার কোনদিনই তাদের স্ব স্ব কর্মস্থলে যাননি।
নির্ধারিত স্বাস্থ্য কেন্দ্রগুলোতে নিয়োগকৃত ডাক্তার না গেলেও উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মিজানুর রহমান কোন ব্যবস্থা নেননি। অভিযোগ রয়েছে তাকে ম্যানেজ করেই তারা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অবস্থান করছেন।

এ বিষয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মিজানুর রহমান বলেন, উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে ডাক্তার বেশি দরকার। ইমার্জেন্সি ২৪ ঘন্টা চালু রাখার জন্য এখানে ডাক্তারদের রাখা হয়। তবুও কয়েকটি ইউনিয়ন সাব সেন্টারে সপ্তাহে একদিন ডাক্তার যাচ্ছেন।

Facebook Comments Box


যোগাযোগ

বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়

লালমোহন, ভোলা

মোবাইলঃ 01712740138

মেইলঃ jasimjany@gmail.com

সম্পাদক মন্ডলি

error: সাইটের কোন তথ্য কপি করা নিষেধ!! মোঃ জসিম জনি