LalmohanNews24.Com | logo

১৪ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ৩০শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং

নিহত ‘জঙ্গি’র স্মরণে ক্রিকেট, কাশ্মীরে ১০ ছাত্র গ্রেফতার

নিহত ‘জঙ্গি’র স্মরণে ক্রিকেট, কাশ্মীরে ১০ ছাত্র গ্রেফতার

অপরাধ বলতে শুধু প্রকাশ্যে ক্রিকেট ম্যাচ খেলা। এবং সেকারণেই গ্রেপ্তার করে নিয়ে গিয়েছে কাশ্মীর পুলিশ। আটক করে রাখা হয়েছে দীর্ঘক্ষণ। এতক্ষণ পড়ে মনে হতে পারে, এ ভারি অন্যায়। কিন্তু এর নেপথ্যে যে কী গভীর ষড়যন্ত্র, তা জানলে চোখ কপালে উঠতে বাধ্য। এই ক্রিকেট ম্যাচ আসলে সামান্য ক্রিকেট ম্যাচ নয়। এর আড়ালে বিচ্ছিন্নতাবাদীরা জেহাদের বিষ ছড়ানোর চেষ্টা করছে।

একটু খোলসা করেই বলা যাক। দিন দু’য়েক আগে কাশ্মীরের বারামুলায় ক্রিকেট খেলার অপরাধে UAPA অর্থাৎ বেআইনি কার্যকলাপ প্রতিরোধ আইনের (Unlawful Activities Prevention Act) অধীনে ১০ জনকে গ্রেপ্তার করেছে নিরাপত্তারক্ষীরা। যা নিয়ে রীতিমতো আলোড়িত হয়ে যায় উপত্যকার ওই এলাকা।

এই UAPA অন্য কথায় ভারতে দেশদ্রোহিতার ধারা। এখন প্রশ্ন উঠতে পারে, সামান্য ক্রিকেট খেলা দেশদ্রোহিতা কী করে হয়? আসলে ওই ক্রিকেট ম্যাচটি আয়োজিত হয়েছিল এক কুখ্যাত জঙ্গিনেতার স্মরণে। শুধু তাই নয়, আয়োজকরা ওই জঙ্গিনেতাকে স্মরণ করার জন্য তার নামাঙ্কিত জার্সিও ক্রিকেটারদের উপহার দিয়েছিল । যা রীতিমতো আইন বিরোধী।

বৃহস্পতিবার এই ঘটনা ঘটলেও বিষয়টি সংবাদমাধ্যমের কাছে পৌঁছেছে রোববার।

কাশ্মীর পুলিশ জানিয়েছে, ওই ছাত্ররা যে কাজ করেছে তা আইনের চোখে অপরাধ। সে কারণেই তাঁদের গ্রেফতার করা হয়েছে।

জাতীয় নিরাপত্তা আইন বা ইউএপিএ নিয়ে ভারতে বিতর্ক যথেষ্ট। এই আইনের সুযোগ নিয়ে সরকার যাকে খুশি গ্রেফতার করে পারে বলে অভিযোগ। কবি ভারাভারা রাও থেকে শুরু করে পশ্চিমবঙ্গের আদিবাসী নেতা সকলকেই এই আইনে গ্রেফতার করা হয়েছিল। এই আইনে কাউকে কাউকে গ্রেফতার করলে দিনের পর দিন জামিন মেলে না। দেশের বিরুদ্ধে চক্রান্তের অভিযোগে দিনের পর দিন জেলে ভরে রাখা যায়। আইনটিকে সরকার ‘অন্যায়’ভাবে ব্যবহার করে বলে বহুদিনের অভিযোগ। কাশ্মীরেও এই আইনের যথেচ্ছ প্রয়োগ হয়।

পুলিশ জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার দক্ষিণ কাশ্মীরের সোপোরে একটি ক্রিকেট ম্যাচের আয়োজন করেছিল কিছু ছাত্র। আয়োজকদের মধ্যে একজন এক নিহত ‘জঙ্গি’র ভাই। কিছুদিন আগেই পুলিশ এবং সেনার সঙ্গে এনকাউন্টারে ওই বিচ্ছিন্নতাবাদীর মৃত্যু হয়েছিল। বৃহস্পতিবার খেলা শুরুর আগে ওই ব্যক্তিকে স্মরণ করা হয়। ওই ব্যক্তির ভাই জানান, তাঁর দাদা খুব ভালো ক্রিকেট খেলতেন। সে কারণেই তাঁকে স্মরণ করে খেলা শুরু করার পরিকল্পনা করা হয়েছিল।

খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছয় পুলিশ। আয়োজক-সহ ১০ জনকে গ্রেফতার করা হয়। পুলিশ জানায়, জাতীয় নিরাপত্তা আইন বা ইউএপিএ অনুযায়ী কোনও ‘জঙ্গি’র নামে খেলার আয়োন করা দেশবিরোধী কাজ। সে কারণেই ওই ছাত্রদের গ্রেফতার করা হয়েছে। শুধু তাই নয়, সোপিয়ান, পুলওয়ামা সহ বেশ কিছু এলাকায় ওই ব্যক্তির নামে জার্সি তৈরি করে পাঠানো হয়েছিল বলেও অভিযোগ করেছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার এ ঘটনা ঘটার পরে সোপিয়ান অঞ্চলে নতুন করে উত্তেজনা শুরু হয়েছে। সাধারণ মানুষের একাংশ ওই ছাত্রদের মুক্তির দাবিতে বিক্ষোভও দেখিয়েছেন।

Facebook Comments


যোগাযোগ

বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়

লালমোহন, ভোলা

মোবাইলঃ 01712740138

মেইলঃ jasimjany@gmail.com

সম্পাদক মন্ডলি

error: সাইটের কোন তথ্য কপি করা নিষেধ!! মোঃ জসিম জনি