LalmohanNews24.Com | logo

২৭শে চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ১১ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

দুই মাসের নিষেধাজ্ঞা শেষে নদীতে নামছে তজুমদ্দিনের জেলেরা

দুই মাসের নিষেধাজ্ঞা শেষে নদীতে নামছে তজুমদ্দিনের জেলেরা

ইলিশের প্রজনন মৌসুম হিসেবে মার্চ এপ্রিল দুই মাস মেঘনা নদীতে সকল প্রকার মাছ ধরার উপর নিষেধাজ্ঞা দেয় সরকার। নিষেধাজ্ঞা শেষে আজ ১লা মে শুক্রবার থেকে মেঘনা নদীতে ইলিশ শিকারে নামবে তজুমদ্দিন উপজেলার প্রায় ১৮ হাজার জেলে। দীর্ঘ বিরতির পর মাছ ধরতে এরইমধ্যে জাল, নৌকা মেরামতসহ সবধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে জেলেরা। মাছ ধরা শুরু হলে জেলে মৎস্য ব্যবসায়ী ও ক্রেতা-বিক্রেতাদের পদচারণায় ফের জমজমাট হয়ে উঠবে এ উপজেলার প্রায় ৮-১০টি মৎস্য ঘাট।

সরেজমিন ঘুরে জেলেদের সাথে আলাপকালে জানা গেছে, দুই মাস নদীতে মাছ ধরা থেকে বিরত থাকার পর আজ থেকে নদীতে মাছ শিকারে যাচ্ছেন তারা। নিষেধাজ্ঞার এসময়ে তারা নৌকা জাল মেরামত করে ব্যস্ত সময় পার করেছেন। বিকল্প কোন কর্মসংস্থান না থাকায় গত দুই মাস ধরে ধারদেনা করে চলছে তাদের সংসার। নদীতে মাছ ধরা পড়লে ধরা দেনা পরিশোদ করে পরিবার পরিজন নিয়ে সামনের দিনগুলো ভালো থাকবে।

তজুমদ্দিন উপজেলা মৎস্য অফিসার মোঃ আমির হোসেন বলেন, এ উপজেলার ৫টি ইউনিয়নে প্রায় ১৮ হাজার ৫২০ জন নিবন্ধিত জেলে রয়েছে। এদের মধ্যে থেকে ৭ হাজার ৫শ ৫৫ জেলের নামে চাল বরাদ্দ দেয় সরকার। যেহেতু জেলের সংখ্যা অনেক বেশি তাই সরকারিভাবে যে পরিমান বরাদ্দ পাওয়া গেছে তাতে অর্ধেকের চেয়ে বেশি জেলে সরকারি এ সুবিদা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। জেলেদের সংখ্যা বিবেচনা করে বরাদ্দের পরিমান বাড়নো উচিত। এছাড়া আজ ১লা মে থেকে জেলেরা নদীতে মাছ ধরতে পারবে তবে ৩০ জুন পর্যন্ত কোন জাটকা ইলিশ ধরা যাবে না।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোঃ রাসেদ খান বলেন, ফেব্রুয়ারী থেকে মে পর্যন্ত ৪ মাস জেলেদের বিশেষ ভিজিএফের আওতায় এ উপজেলায় প্রায় ১২শ মেঃ টন চাল বরাদ্দ পাওয়া গেছে। ইতোমধ্যে ৭ হাজার ৫শ ৫৫জন জেলকে প্রতি মাসে ৪০ কেজি করে দুই মাসের চাল দেওয়া হয়েছে। বাকি দুই মাসের মধ্যে সংশ্লিষ্ট ইউনিয়নের চেয়ারম্যানদের আরো এক মাসের চাল বিতরণের জন্য ডিও দেওয়া হয়েছে। শিগগিরই এক মাসের চাল বিতরণ করবে।

Facebook Comments Box


যোগাযোগ

বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়

লালমোহন, ভোলা

মোবাইলঃ 01712740138

মেইলঃ jasimjany@gmail.com

সম্পাদক মন্ডলি

error: সাইটের কোন তথ্য কপি করা নিষেধ!! মোঃ জসিম জনি