LalmohanNews24.Com | logo

৮ই কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ২৩শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং

তীব্র সমালোচনার মুখে অবশেষে পদত্যাগ করতে চাইলেন শিক্ষামন্ত্রী, প্রধানমন্ত্রীর না

তীব্র সমালোচনার মুখে অবশেষে পদত্যাগ করতে চাইলেন শিক্ষামন্ত্রী, প্রধানমন্ত্রীর না

লালমোহননিউজ২৪ ডটকমঃ প্রশ্নফাঁস ও ঘুষ নিয়ে সম্প্রতি এক বক্তব্যের জেরে ব্যাপক সমালোচনার মুখে অবশেষে পদত্যাগ করতে চেয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসমলাম নাহিদ। কিন্তু এতে সায় দিলেন না প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে গণভবনে গিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করে পদত্যাগের ইচ্ছার কথা জানান শিক্ষামন্ত্রী।

এ সময় নাহিদ প্রধানমন্ত্রীকে বলেন, এসএসসির প্রশ্নপত্র ফাঁস নিয়ে গণমাধ্যমে সমালোচনা করা হচ্ছে। নানা কথা হচ্ছে। তিনি চেষ্টা করে যাচ্ছেন। প্রতিদিনই নিত্য-নতুন উদ্যোগ নিচ্ছেন, নতুন নতুন কর্মপন্থা ঠিক করছেন। এখন এ অবস্থায় তার সরে যাওয়া উচিত বলে তিনি মনে করছেন।

তবে প্রধানমন্ত্রী এসব বিষয় নিয়ে শিক্ষামন্ত্রীকে না ভাবার পরামর্শ দিয়ে মন্ত্রণালয়ে অনিয়মে জড়িতদের খুঁজে বের করার তাগিদ দিয়েছেন। তিনি শক্ত হাতে মন্ত্রণালয় সামলাতে বলেন। প্রয়োজনে আরও কঠোর হতে বলেন।

সার্বিক পরিস্থিতি আমি পর্যবেক্ষণ করছি-এমন মন্তব্য করে প্রধানমন্ত্রী শিক্ষামন্ত্রীকে বলেছেন, ১০০ অর্জন আছে, দু’একটি ঘটনায় সর্ব অর্জন নষ্ট হতে দেয়া যাবে না। শিক্ষা মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্ট সব দপ্তরের কাজে কঠোর হোন। প্রশ্ন ফাঁসের মতো সরকারের মর্যাদাক্ষুন্নকারী তৎপরতার বিষয়ে যাতে সঠিক তথ্য জনগণের কাছে যায় তা নিশ্চিত করতে হবে।

পরে গণভবন থেকে বের হয়ে শিক্ষামন্ত্রী নিজ মন্ত্রণালয়ে যান। এরপরই দুপুরে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নিয়ে জরুরি বৈঠকে বসেন মন্ত্রী। সেখানে মন্ত্রণালয়ে বড় ধরনের পরিবর্তনের আভাস দেন বলে জানিয়েছে মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বশীল সূত্র।

সর্বশেষ সোমবার জাতীয় সংসদেও তার পদত্যাগের দাবি ওঠে। প্রশ্নপত্র ফাঁস মহামারী আকার ধারণ করেছে মন্তব্য করে জাতীয় পার্টির এমপি জিয়া উদ্দিন আহমেদ বাবলু শিক্ষামন্ত্রীর পদত্যাগ দাবি করেন।

এরপর মঙ্গলবার জাতীয় সংসদে রাষ্ট্রপতির ভাষণের ওপর ধন্যবাদ প্রস্তাবের আলোচনায় অংশ নিয়ে শিক্ষামন্ত্রীর পক্ষে সাফাই গান চট্টগ্রামের পটিয়ার সংসদ সদস্য (এমপি) সামশুল হক চৌধুরী।

তিনি বলেন, ‘উনি (শিক্ষামন্ত্রী) সোজা-সরল মানুষ। উনাকে খালি পদত্যাগ করেন, পদত্যাগ করেন…পদত্যাগ করে কী করবে? পদত্যাগ করলে তো আরেকজনকে দেবে, আরেকজন দিলে তার মাধ্যমে হবে না, তা কি কেউ বলতে পারেন? বলতে পারেন না।’

এই সংসদ সদস্য আরও বলেন, ‘তিনি একা কী করবেন? তাকে বাদ দিয়ে আর কাউকে মন্ত্রী করলেই যে প্রশ্নপত্র ফাঁস হবে না, তা বলা যায় না।’

শিক্ষামন্ত্রীর নিচে যারা আছেন তাদের বিরুদ্ধে তদন্তের প্রস্তাব করে সামশুল হক বলেন, ‘শিক্ষামন্ত্রীকে নিয়ে অনেকে অনেক কথা বলেন। আমি বলব শিক্ষামন্ত্রী একজন কী করবেন? শিক্ষামন্ত্রীর নিচে যারা আছে তাদের নিয়ে তদন্ত চালান।’

এদিকে সোমবার সংসেদ দাবির ওঠার পরই নাহিদ দায়িত্ব ছেড়ে দেয়ার আর্জি নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। প্রায় পৌনে দুই ঘণ্টা প্রধানমন্ত্রী ও শিক্ষামন্ত্রী এসএসসি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ও শিক্ষা খাতের নানা বিষয়ে আলাপ করেন। এসময় প্রধানমন্ত্রী মন্ত্রণালয়ের অনিয়ম ও প্রশ্ন ফাঁস ঠেকাতে মন্ত্রীকে কড়া নির্দেশনা দেন।

এরপর দুপুর আড়াইটায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নিয়ে রুদ্ধতার বৈঠকে বসেন মন্ত্রী। বৈঠকে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ একাই কথা বলেন। তিনি প্রধানমন্ত্রীর বার্তা কর্মকর্তাদের কাছে পৌঁছে দিয়ে বলেন, প্রশ্নপত্র ফাঁস ঠেকাতে সর্বোচ্চ কঠোরতা দেখাতে হবে। যে কোনো মূল্যে ফাঁসকারী চক্রকে ধরতে হবে।

জানা গেছে, গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে মন্ত্রণালয়ে রদবদল আনা হচ্ছে। অতিরিক্ত সচিবসহ প্রায় ডজন খানেক কর্মকর্তার ডেস্ক বদলসহ শিক্ষা দপ্তরগুলোয় বড় পরিবর্তন আনা হচ্ছে।

উল্লেখ্য, গতবছর প্রায় সব ধরনের পাবলিক পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁস হওয়ার পর এবার তা বন্ধে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় বিভিন্ন পদক্ষেপ নেওয়া হয় শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে। তারপরও ‘বাংলা প্রথম পত্র’ ও দ্বিতীয়পত্রের পর ইংরেজি প্রথমপত্রের প্রশ্নও ফাঁস হয়েছে। পরীক্ষা শুরুর ঘণ্টা খানেক আগে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে উত্তরসহ প্রশ্ন ছড়িয়ে পড়ে। মূল প্রশ্নের সঙ্গে ফাঁস হওয়া প্রশ্নের হুবহু মিল পাওয়া যায়।

 

হাসান পিন্টু

Facebook Comments


যোগাযোগ

বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়

লালমোহন, ভোলা

মোবাইলঃ 01712740138

মেইলঃ jasimjany@gmail.com

সম্পাদক মন্ডলি

error: সাইটের কোন তথ্য কপি করা নিষেধ!! মোঃ জসিম জনি