LalmohanNews24.Com | logo

১২ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ২৫শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

তজুমদ্দিনে জমির বিরোধকে কেন্দ্র করে বসত ঘরে হামলা ভাংচুর লুটপাট

তজুমদ্দিনে জমির বিরোধকে কেন্দ্র করে  বসত ঘরে হামলা ভাংচুর লুটপাট

তজুমদ্দিন প্রতিবেদক।। ভোলার তজুমদ্দিনে দুই ভাইয়ের জমির বিরোধকে কেন্দ্র করে বসত ঘরে হামলা চালিয়ে মালামাল লুটপাট ও নারীদের মারপিট করার অভিযোগ পাওয়া গেছে প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে। ওই পরিবারটি বর্তমানের খোলা আকাশের নিচে মানবেতর জীবন যাপন করছে।

আলাপকালে জানা যায়, উপজেলার আড়ালিয়া গ্রামের মৃত হাচনজ্জামান হাওলাদারের দুই ছেলে চাঁদপুর ইউপি’র ৮নং ওয়ার্ডের সাবেক সদস্য মোঃ জাকির হোসেন ও মোফাজ্জল হোসেন। ভোলা জেলার তজুমদ্দিন থানাধীন তৌজি নং ৩৩, জে.এল নং ৫০, মৌজা কেয়ামূল্যাহ এস.এ খতিয়ান নং ৬৯৮, ১৯৬নং দাগে, ২.৬৬ একর জমি ১৯৮৯ সালের রেজিঃকৃত ১৬৬১নং হেবা দলিল ও ওয়ারিশ সুত্রে হাচনজ্জামানের দ্বিতীয় ঘরের ছেলে জাকির হোসেন ভোগদখল করে আসছেন। ওই দাগের জমি থেকে জাকির হোসেন পাশ্ববর্তী গরীব দুলালের নিকট ১০ শতাংশ জমি বিক্রি করেন। ক্রয়ের পর দুলাল উক্ত জমিতে ঘর তুলে বসবাস শুরু করেন। ঘর তোলার পর জাকির মেম্বারের সৎ ভাই মোফাজ্জল ওই জমির মালিকানা দাবী করে থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দিলে জমি সংক্রান্ত বিরোধের কারণে আদালতের মাধ্যমে সমস্যা সমাধানের পরামর্শ দেন এবং সম্পত্তি যে অবস্থায় আছে সে অবস্থায় থাকবে বলেও উভয় পক্ষকে মৌখিক নির্দেশ দেন। পরে জাকির মেম্বার বাদী হয়ে তার সৎ ভাই মোফাজ্জল হোসেন (৫৫), তার ছেলে আড়ালিয়া রহমানিয়া আলিম মাদ্রাসার দপ্তরী মিলন (৩০), তোফাজ্জল হোসেন (৭০), মতলব (৬০), মোঃ কামাল (৪৫), মোঃ মিজান (৩০) ও আড়ালিয়া রহমানিয়া আলিম মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাও: মোঃ ইব্রাহিমকে (৫৫) আসামী করে গত ২৩ নভেম্বর ভোলা অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেটের আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলা দায়েরের পর আরো বেশী ক্ষিপ্ত হয়ে মামলার বাদীকে বিভিন্ন ধরনের হুমকি ধামকি দিতে থাকেন মোফাজ্জল গংরা। এরই ধারাবাহিকতায় গত ১ জানুয়ারী সকাল ৯ টায় মোফাজ্জল ও তার ছেলে আড়ালিয়া রহমানিয়া আলিম মাদ্রাসার দপ্তরী মিলন দুলালের বসত ঘর ভেঙ্গে ঘুড়িয়ে দেয় এবং ঘরের সকল মালামাল লুট করে নিয়ে যায় বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান।

একই সাথে ঘর ভাঙ্গার পর উক্ত জমি পাওয়ার টিলার দিয়ে চাষাবাদের জন্য প্রস্তুত করেন। এ সময় দুলালের স্ত্রী বিবি হনুফা বাঁধা দিতে চাইলে মিলন ও তার বাবা মোফাজ্জল তাকে মারপিট করে। হনুফার বড় বোন মিলন বেগম (৪০) জানান, ঘর ভেঙ্গে মালামাল নিয়ে যাওয়ার সময় আমার বোন বাঁধা দিলে তাকে এলোপাতাড়ি মারপিট করলে আমি তাকে ছাড়াতে গেলে আমাকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে তারা। প্রত্যক্ষদর্শী আঃ মান্নান (৪৬) জানান, ঘর ভাঙ্গার পর ঘরের হাড়ি পাতিলসহ অন্যান্যা মালামাল নিয়ে যায় মোফাজ্জল গংরা। পরে আমি তাতে বাঁধা দিলে ঘরের একটি চকি ও চালগুলি রেখে যায়। ঘরের মালিক মোঃ দুলাল জানান, আমি গরীব মানুষ মোফাজ্জল গংরা আমার বসত ঘর ভেঙ্গে মালামাল লুট করে এবং আমার স্ত্রীকে মারপিট করে নিয়ে যায়। বর্তমানে আমি পরিবার পরিজন নিয়ে খোলা আকাশের নিচে থাকি এঘটনার সঠিক বিচার চাই আমি। জমির মালিক সাবেক ইউপি সদস্য মোঃ জাকির হোসেন জানান, এই জমির হেবা দলিল মূলে ও ওয়ারিশ সুত্রে আমি মালিক। আমার সৎ ভাইরা আমার সাথে শুধু শুধু সমস্যা তৈরি করছে। এ বিষয়ে জানতে মোফাজ্জলের বাসায় গিয়েও তাকে পাওয়া যায়নি। মামলার আসামী হওয়া সম্পর্কে মাওলানা ইব্রাহিমের কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান, আমাকে মামলার আসামী করা সম্পর্কে আমি কিছুই জানিনা।

হাসান পিন্টু

Facebook Comments


যোগাযোগ

বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়

লালমোহন, ভোলা

মোবাইলঃ 01712740138

মেইলঃ jasimjany@gmail.com

সম্পাদক মন্ডলি

error: সাইটের কোন তথ্য কপি করা নিষেধ!! মোঃ জসিম জনি