LalmohanNews24.Com | logo

৭ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ২০শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

চরফ্যাসনে ঝড়-বৃষ্টিতে কিছুটা ক্ষতিগ্রস্ত ধানক্ষেত, আতঙ্কিত কৃষকরা

মোঃ জসিম জনি মোঃ জসিম জনি

সম্পাদক ও প্রকাশক

প্রকাশিত : এপ্রিল ৩০, ২০১৮, ২২:৪৮

চরফ্যাসনে ঝড়-বৃষ্টিতে কিছুটা ক্ষতিগ্রস্ত ধানক্ষেত, আতঙ্কিত কৃষকরা

আক্তারুজ্জামান সুজন, অতিথি প্রতিবেদক: গত কয়েকদিনে কয়েক দফা কালবৈশাখী ঝড় আর বৃষ্টিতে চলতি মৌসুমের শেষের দিকে ভোলার চরফ্যাসন উপজেলায় ইরি-বোরো ধানের ক্ষেত কিছুটা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, তবে বৃষ্টির পরিমান অারো একদিন দীর্ঘায়িত হলে ইরি-বোরো ধানের ব্যাপক ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। এদিকে বেশির ভাগ জমিতে আধাপাকা ধান নিয়ে কৃষকদের মাঝে আতঙ্ক বিরাজ করেছে।

উপজেলার কৃষি অফিসের তথ্য সুত্রে জানা যায় যে, চলতি ইরি-বোরো মৌসুমে চরফ্যাসন উপজেলায় মোট ৩০ হাজার ২ শত ৫ হেক্টর জমিতে ইরি-বোরো চাষ হয়েছে, তবে মৌসুমের শেষের দিকে ঝড়-বৃষ্টির কারনে বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা কিছুটা ব্যাহত হয়েছে।

চরফ্যাসন উপজেলার নীলকমল, নুরাবাদ,ওসমানগন্জ , অাহম্মেদপুর ইউনিয়নের ওপর দিয়ে গত কয়েকদিনে কয়েকদফা কালবৈশাখী ঝড় বয়ে যায়। এর ফলে এসব এলাকার বেশির ভাগ জমির আধাপাকা ধান মাটিতে শুয়ে পড়েছে। অসময়ের বৃষ্টির পানি জমা হয়ে কোথাও কোথাও ধানের শীষ পর্যন্ত পানিতে তলিয়ে গেছে। একদিকে বৃষ্টির ফলে উঠতি ধানের বেশির ভাগই ঝড়ে পড়েছে। পানিতে তলিয়েও ধান নষ্ট হয়েছে।

কৃষকরা বলছেন, ঝড় ও বৃষ্টিতে সৃষ্ট ক্ষতি পুষিয়ে উঠতে হিমশিম খেতে হবে তাদের। যেসব জমির ধান ক্ষেতে পানি জমে গেছে সেসব জমি থেকে ধান ঘরে তুলতে পারবেন না বলে তাদের আশঙ্কা হচ্ছে। বছরের অন্যতম ফসল হারিয়ে কীভাবে দিন চলবে তাই ভেবে এখন আতঙ্কিত কৃষকরা।

চরফ্যাসন উপজেলার কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ মনোতোষ সিকদার বলেন, ‘এ বছর শুরু থেকেই কালবৈশাখীর প্রবণতা বেশি লক্ষ্য করা যাচ্ছে। কয়েকদিনের কালবৈশাখী ঝড় এবং বৃষ্টিতে কোনও কোনও এলাকার ধানের কিছুটা ক্ষতি হয়েছে। বৃষ্টির পানি জমা হয়ে কিছু উঠতি পাকা ধান ডুবে গেছে। এতে ফলন কিছুটা কম উঠবে। তবে বৃষ্টির পরিমান অারো দীর্ঘায়িত না হলে হলে ভাল ফলনেরই অাশা করেছেন এই কৃষি কর্মকর্তা।

হাসান পিন্টু

Facebook Comments Box


যোগাযোগ

বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়

লালমোহন, ভোলা

মোবাইলঃ 01712740138

মেইলঃ jasimjany@gmail.com

সম্পাদক মন্ডলি

error: সাইটের কোন তথ্য কপি করা নিষেধ!! মোঃ জসিম জনি