LalmohanNews24.Com | logo

৩রা পৌষ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ১৬ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং

চরফ্যাশন হাসপাতালকে দালালমূক্ত করতে সাধারণ জনগনের অভিনব প্রতিবাদ!

চরফ্যাশন হাসপাতালকে দালালমূক্ত করতে সাধারণ জনগনের অভিনব প্রতিবাদ!

ভোলার চরফ্যাশন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে দালালদের দৌরাত্বে চিকিৎসা সেবা নিতে গ্রাম থেকে যাওয়া রোগীরা হযরানীর শিকার হওয়ার অভিযোগে দালালমুক্ত চিকিৎসা সেবা পাওয়ার জন্য সাধারন জনগনের পক্ষে দেয়ালে বড় আকারে ডিজিটাল ব্যানার সেটে দেওয়া হয়েছে। বিভিন্ন ডায়াগনষ্টিক সেন্টার, ফার্মেসীর প্রতিনিধি সহ চিকিৎসদের ও দালাল কাজ করছে বলে সুত্র জানান।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্মকর্তা ডা. শোভন বসাক দালাল মুক্ত করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন বলে জানান। প্রয়োজনের তুলনায় চিকিৎসক কম ৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে নিয়ম অনুয়ায়ী ৩৫ জন চিকিৎসক থাকার বিধান থাকলেও বর্তমানে কর্মরত আছেন মাত্র ১৩ জন যার ফলে ৬ লাখ মানুষের চিকিৎসা সেবা দিতে গিয়ে চিকিৎসকরা হিমশিম খাচ্ছে বলে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. শোভন বসাক জানান।

দালালরা রোগীদের ডায়াগনষ্ঠিক সেন্টারের প্রাইভেট চেম্বারে পাঠানোর চেষ্ঠা বিভিন্ন ধরনের দালালরা কখনো নিজেদেরকে হাসপাতালের ষ্টাফ পরিচয় দিয়ে ডায়াগনষ্টিক সেন্টারে প্রাইভেট ভাবে দ্রুত রোগী দেখিয়ে দেওয়ার আস্বাশ সহ প্রসুতি মহিলাদের সিজারের জন্য রোগীর স্বজনদের পিছু নেয়। ওয়ার্ডে রোগী দেখার চেয়ে চেম্বার নিয়ে ব্যাস্থ চিকিৎসকরা হাসপাতালে কর্তব্যরত চিকিৎসরা প্রতিদিন ২বার ওয়ার্ড পরিদর্শণ করার নিয়ম থাকলে ২দিন পর চিকিৎসকের দেখা পাওয়া যায়না। বারবার ধর্ণা দিয়ে তাদেরকে ওয়ার্ডে আনতে হয় অথবা চেম্বারে গিয়ে দেখাতে বলা হয়। চিকিৎসকদের দেয়া নির্দেশ অনুয়ায়ী ব্রাদার/ শিষ্টাররা দায়িত্ব পালন করেন। তারা অভিযোগ করেন ঠিকমত চিকিৎসকরা ওয়ার্ডে আসেন না।

প্রতিবেদন তৈরির জন্য রবিবার দুপুর ২টার সময় হাসপাতালে গেলে জানা যায় আজকের দায়িত্বরত চিকিৎসক হোসনেয়ারা বেগম খাবার খেতে বাসায় গেছেন। ২টা থেকে ৩টা ৩০ মিনিট পযন্ত বিভিন্ন ওয়ার্ডে ঘুরে ঘুরে রোগীদের সাথে কথা বলার সময় পযন্ত তিনি ফিরে আসেননি। এ সময় শিষ্টাররা দায়িত্ব পালন করেন। ধারণ ক্ষমতার চেয়ে অতিরিক্ত রোগীর চাপ ৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতাল হলেও প্রতিদিন ৮০ থেকে ১০০ জনের বেশী বিভিন্ন ধরনের রোগী ভর্তি হয় ফলে ফ্লোরে রেখে তাদের চিকিৎসা দিতে হয়।

উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. শোভন বসাক বলেন ,চরফ্যাশন উপজেলায় ৬ লাখ লোকের বসতি। প্রতিদিন অতিরিক্ত রোগী আসার কারনে মুখোশধারী দালালরা প্রায় সময় রোগীদের হয়রানী করার অভিযোগ পাওয়া যায়। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স দালালমুক্ত করার জন্য আমি উপজেলা প্রসাশনে কয়েকবার আলোচনা করেছি। আগের চেয়ে দালাল অনেক কমেছে। অতিরিক্ত রোগী থাকার কারনে এবং প্রয়োজনের তুলনায় চিকিৎসক কম হওয়ার ফলে রোগীরা যথাযথ চিকিৎসা সেবা পাচ্ছেন না। এ ব্যাপারে আমি আমার উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদেরকে অবহিত করেছি।

 

লালমোহননিউজ/ হাসান পিন্টু

Facebook Comments


যোগাযোগ

বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়

লালমোহন, ভোলা

মোবাইলঃ 01712740138

মেইলঃ jasimjany@gmail.com

সম্পাদক মন্ডলি