LalmohanNews24.Com | logo

৭ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ২৩শে অক্টোবর, ২০২০ ইং

‘কাশ্মীরিরা এখন ভারতের চেয়ে বরং চীনের অধীনে থাকতে চায়’

‘কাশ্মীরিরা এখন ভারতের চেয়ে বরং চীনের অধীনে থাকতে চায়’

কাশ্মীরিরা এখন ভারতের চেয়ে বরং চীনের অধীনে থাকতে চায় বলে মন্তব্য করেছেন জম্মু ও কাশ্মীরের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ফারুক আবদুল্লাহ।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম দ্য ওয়্যারকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘নিজেকে ভারতীয় মনে করেন, কাশ্মীরে এমন কাউকে খুঁজে যাবে কিনা আমি সন্দিহান। কারণ তারা আর ভারত সরকারকে বিশ্বাস করে না।’

জম্মু ও কাশ্মীরে ভারতপন্থী হিসেবে পরিচিতদের মধ্যে অন্যতম হচ্ছেন আব্দুল্লাহ। ন্যাশনাল কনফারেন্স পার্টির এই প্রধান কাশ্মীরীদের অবস্থাকে দাসের সঙ্গে তুলনা করে বলে তাদের সঙ্গে দ্বিতীয় শ্রেণির নাগরিকের মতো আচরণ করা হচ্ছে।

৪৪ মিনিটের ওই সাক্ষাৎকারে কেন্দ্রে ক্ষমতায় থাকা ভারতীয় জনতা পার্টি’র (বিজেপি) করা দাবি সত্য নয় বলেও উল্লেখ করেছেন আব্দুল্লাহ। বিজেপি দাবি করেছে যে, গত বছরের আগস্টে কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিলকে মেনে নিয়েছে কাশ্মীরের মানুষজন। তবে আব্দুল্লাহ বলছেন, বিক্ষোভ হচ্ছে না বলেই যে কাশ্মীরের মানুষজন এটা মেনে নিয়েছে তা নয়।

তিনি বলেন, যদি প্রতিটি সড়ক থেকে সেনা এবং ১৪৪ ধারা তুলে নেয়া হয়, তাহলে লাখ লাখ মানুষ রাস্তায় নেমে আসবে। এই অঞ্চলটিকে হিন্দু সংখ্যাগরিষ্ঠ করে তোলার জন্য সরকার এই আইন এনেছে, যা কাশ্মীরীদের মধ্যে তিক্ততা আরও বাড়িয়ে তুলেছে।

কাশ্মীরের মানুষজন বিজেপি সরকার বিশেষ করে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিতশাহকে কিভাবে দেখে, এমন প্রশ্নের জবাবে আব্দুল্লাহ বলেন, তারা গভীরভাবে হতাশ হয়েছে। তারা বিজেপি সরকারকে বিশ্বাস করে না। যে বিশ্বাস একসময় পুরো দেশের সঙ্গে কাশ্মীরকে বেঁধে রেখেছিল, তা ছিন্ন হয়ে গেছে।

উল্লেখ্য, জম্মু ও কাশ্মীরকে বিশেষ মর্যাদা দিয়ে সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ ও ৩৫এ ধারা বাতিল করে ভারত সরকার। এর ফলে রাজ্য হিসেবে মর্যাদা হারায় জম্মু ও কাশ্মীর এবং এটিকে ভেঙে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে পরিণত করা হয়।

Facebook Comments


যোগাযোগ

বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়

লালমোহন, ভোলা

মোবাইলঃ 01712740138

মেইলঃ jasimjany@gmail.com

সম্পাদক মন্ডলি

error: সাইটের কোন তথ্য কপি করা নিষেধ!! মোঃ জসিম জনি