LalmohanNews24.Com | logo

৫ই শ্রাবণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | ২০শে জুলাই, ২০১৯ ইং

অসহায়দের জন্য আর্শীবাদ ইউএনও রুমি

অসহায়দের জন্য আর্শীবাদ ইউএনও রুমি

ভোলার লালমোহনে অসহায়দের জন্য আর্শিবাদ হয়ে আছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হাবিবুল হাসান রুমি। ২০১৮ সালের এপ্রিলের প্রথম দিকে গোপালগঞ্জ থেকে পদোন্নতি পেয়ে লালমোহনে ইউএনও হিসেবে যোগদান করেন তিনি। এরপর থেকে অসহায়দের জন্য মানবিক অনেক কাজ করে উপজেলার বিভিন্ন মহলে ব্যাপক আলোচনায় আসেন ইউএনও হাবিবুল হাসান রুমি। সম্প্রতি লালমোহনকে ভিক্ষুকমুক্ত করার অঙ্গিকার করেন তিনি।

তারই ধারাবাহিকতায় উপজেলায় কর্মরত কর্মকর্তাদের একদিনের বেতন দিয়ে লালমোহন সদর ইউনিয়নকে প্রায় ৭ লক্ষ টাকা ব্যয়ে ভিক্ষুকমুক্ত ঘোষণা করেন। ওই ইউনিয়নের ৪৭ জন ভিক্ষুককে স্বালম্বী করতে গরু, ছাগল, হাঁস ও দোকান করে দিয়েছেন তিনি। এখন লালমোহন ইউনিয়নের ভিক্ষুকরা ভিক্ষা পেশা ছেড়ে ইউএনওর দেয়া সহযোগিতা নিয়ে নিজেরাই স্বাবলম্বী হচ্ছে।

ইউএনওর দেয়া সহযোগিতা পেয়ে স্বাবলম্বী হওয়া আমজাদ, রফিক, বিবি আয়েশা ও জয়তুন বেগমসহ কয়েকজন বলেন, ইউএনও স্যার আমাদেরকে সহযোগিতা করে ভিক্ষা পেশা থেকে মুক্ত করেছেন। আমরা এখন নিজেরাই দিন দিন স্বালম্বী হচ্ছি। স্যারের দেয়া দোকান থেকে আয় করে সংসার পরিচালনা করছি। এখন আর আমাদের কারও কাছে হাত পাততে হয় না। আমরা স্যারের জন্য দোয়া করি, স্যার যেনো আরও বড় হন। অসহায় মানুষ ও দেশের জন্য যেনো আরও সেবা করতে পারেন।

অন্যদিকে উপজেলার পশ্চিম চর উমেদ ইউনিয়নের সিকদারহাট এলাকার তানিয়া বেগম গত বছর জেডিসি পরীক্ষার সময় সংসারে অভাবের তাড়নায় অন্ধ মায়ের সঙ্গে ভিক্ষা করতেন। খবর পেয়ে তানিয়া ও তার মা রাশেদা বেগমকে একটি টিন শেড ঘর ও মুদি দোকান নির্মাণ করে দেন ইউএনও। এখন সেই তানিয়ার পরিবারও তাঁর দেয়া সহযোগিতার ওপর নির্ভর করে সংসার পরিচালনা করছেন।

এদিকে সম্প্রতিকালে ঘূর্ণিঝড় ফণির তান্ডবে ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয় লালমোহন । পরদিন সকালে নিজে ও উপজেলার অন্যান্য কর্মকর্তাকে নিয়ে ছুটে যান ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোর কাছে। সেই ঘূর্ণিঝড় ফণির তান্ডব থেকে বাদ পড়েনি উপজেলার বদরপুর ইউনিয়নের অসহায় খোকন বিবির মাথা গোঁজার শেষ সম্বলটুকুও। খোকন বিবিকে নিয়ে লালমোহননিউজে ‘ফণি কেড়ে নিলো খোকন বিবির শেষ সম্বলটুকুও’ শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশের পরপরই তার বাড়িতে ছুটে যান ইউএনও হাবিবুল হাসান রুমি। তাকেও নিজের উদ্যোগে একটি টিন শেড ঘর ও বিধবা ভাতার কার্ড করে দেন তিনি।

এসব কর্মকান্ডের ব্যাপারে ইউএনও হাবিবুল হাসান রুমি বলেন, সমাজের অসহায় মানুষগুলোর পাশে দাঁড়ানো সকলের দায়িত্ব। সেই দায়িত্ববোধ থেকেই এসব অসহায়দের জন্য কিছু করার চেষ্টা করেছি। আমি চাই সকলের বিবেক জাগ্রত হয়ে এই অসহায় মানুষগুলোর পাশে দাঁড়াক।

Facebook Comments


যোগাযোগ

বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়

লালমোহন, ভোলা

মোবাইলঃ 01712740138

মেইলঃ jasimjany@gmail.com

সম্পাদক মন্ডলি